আমি ভাঙ্গা গড়ার মাঝেই দেখি
   ভবের খেলা
       সারা বেলা,
দেখি তোমার প্রকৃতিরই ছন্দে।
দূর আকাশে রাতের কোলে
কাজল চোখে দু'চোখ মেলে
চাঁদের আলোয় ভাসো কি আনন্দে?
তুমি এইতো হেসে ভালবেসে
দু'হাত বাড়াও,
আবার দেখি বৃষ্টি ঝরাও
অভিমানের বাঁধ ভাঙ্গা কোন দ্বন্দ্বে?
অনুরাগে কাছে টানো,
আবার যখন আঘাত হানো
সেই আঘাতেও ভাসি প্রেমানন্দে।


আমি তোমার চোখের তারায় দেখি
   সর্বনাশা
      পাগল নেশা,
দেখি চোখের প্রণয় আমন্ত্রণ যে।
ছন্দ তুলে মাতাল সুরে
ঢেউ তুলে যায় কি ঝংকারে
কোন সে নাচে তোমার তনুমন যে?
তুমি এইতো এসে মিষ্টি হেসে
আদর করে -
আবার ছুটে পালাও দূরে
দুলিয়ে আমার রক্তে কি মন্থন যে!
তুমি, শুধুই তুমি এ মন জুড়ে,
হারাই যে তাই এমন করে
বিভোর হয়ে তোমায় প্রতিক্ষণ যে!



[রচনাকালঃ ৫ মে ২০০৬ ইং]
(কবিতাটি যখন লেখি, তখন এই 'তুমি' ছিলো কেবলই আমার কল্পনার এক চরিত্র। আমি সেই অল্প কয়েকজন সৌভাগ্যবানদের একজন যার কল্পনা সত্যি সত্যি বাস্তবে এসে ধরা দিয়েছে। বর্তমানে এই 'তুমি' আমার জীবনেরই এক অংশ, একই ছন্দে দু'জনের জীবন গাঁথা।)