ফুলের কলিকারূপে এসেছি যেদিন
অন্তরে তোমার, সে তো অজ্ঞাত আমার
জাগাল স্পন্দন বুকে কে সে কলাকার!
তিলে তিলে উঠি বেড়ে কলেবর ক্ষীণ
আলোর প্রথম স্পর্শ প্রভাত নবীন।
ফুটেছিল চোখে মুখে লাবণ্য তোমার
নিলে কোলে ক্ষণ পরে আনন্দ অপার,
পশেনি তাও তো কর্ণে বেজে ছিল বীন।


চোখের পলকে দেখি আমার মুলুক
বিশাল ব্রহ্মাণ্ড মাঝে অনন্ত আকাশ
সেথা আর কিছু নাই, স্নেহময়ী মুখ
তোমার অঙ্গ রাগের সুমধুর বাস।
কোমল প্রশস্ত ক্রোড় সে আমার নীড়
জননীর আঁচলেই ছায়া সুনিবিড়।