এ কী শিহরন জাগে দক্ষিণ পবনে
পদধ্বনি শুনি কার, বাজিছে শিঞ্জিনী
গোধূলিলগনে বুঝি এলো কমলিনী।
যেটুকু আলোর চিহ্ন ছিল এ ভুবনে
আঁধার ঘনিয়ে আসে পুষ্পিত কাননে।
চকিতে হারিয়ে গেল চঞ্চলা হরিণী
কোমল পরশটুকু নিলে তুমি ছিনি
আঁধারে রয়েছি বসে একাকী বিজনে।


বসন্ত ছড়িয়ে আছে আকাশে বাতাসে
তোমার তুলির টান অশোকে কিংশুকে
দীন আমি তাই বুঝি এমনি বঞ্চনা!
ভরাও চম্পকে তুমি অপূর্ব সুবাসে
কৃপা করো অকিঞ্চনে দেবো রেখে বুকে
করুণার সিন্ধু হতে দিয়ো এক কণা।