*
                     কন্যারত্নের পিতা
                    অজিত কুমার কর


       মুখিয়ে থাকে সারাটি ক্ষণ কখন এসে ডাকে
কান পেতে রয় বাহির পানে কখন আসে সে ঠিক জানে
                 মন বসে না পড়াতে তার
               'খোকি কোথা' ডাকের বাহার
   এলেই দেবে পেস্তা বাদাম আদর ক'রে তাকে
   মুখিয়ে থাকে সারাটি ক্ষণ কখন এসে ডাকে।


  মিনির মতো তারও যে এক ছোট্টো মেয়ে আছে
কচি হাতের কাগজে ছাপ মুখটি ভাসে বড় নিষ্পাপ
                  একে দেখে আনন্দ পায়
                  এ' পথ দিয়ে প্রত্যহ যায়
   ওতেই  মেলে অগাধ তৃপ্তি নাইবা রইলো কাছে
  মিনির মতো তারও যে এক ছোট্টো মেয়ে আছে।


    পিতার বুকে লুকিয়ে থাকে স্নেহের ফল্গুধারা
বাহির দেখে যায় না বোঝা ঠাহর করা নয়কো সোজা
               মেয়ের মুখটি খুঁজে বেড়ায়
               এদিক-ওদিক কেন তাকায়
   বুঝবে তারা কেমন করে নয়কো পিতা যারা,
  পিতার বুকে লুকিয়ে থাকে স্নেহের ফল্গুধারা।


        মিনির বাবা বুঝেছিল রহমতের ব্যথা
এখন তারা মেয়ের পিতা অন্য কেহ বুঝবে কি তা
                  যাও রহমত কাবুলে যাও
                  যৎসামান্য এই তুমি নাও
আজকে খুবই পড়ছে মনে তোমার মেয়ের কথা
       মিনির বাবা বুঝেছিল রহমতের ব্যথা।