ঢেউগুলো ভাঙে এসে তীরে
      ভেজে চর ফেনাভরা নীরে
           গুরুগুরু ডাকে মেঘ,
দোতলার বাতায়নে বসি
     ঘন ঘন বিজুরির অসি
           বাড়ে বাতাসের বেগ।


তুমি কোন চিত্রকর
     তুলির আঁচড়ে আঁক জীবন্ত ছবি
           ঢলে পড়ে দিগন্তে রবি
               অন্তর হতে ঝরে সমাদর,
বিনিদ্র রাতের ফসল
      বহে স্রোত কলকল
              ফুটে ওঠে ব্যথা ক্যানভাসে
              শিশিরের ঝিকিমিকি ঘাসে।


সখীসনে রাধিকার খেলা
     আনমনে কেটে যায় বেলা
            বাজে না যে বাঁশি,
সদা মন উচাটন
      ফাঁকা আজ নিধুব্ন
             বিরহসাগরে ভাসি।


তুলিকার ছোঁয়া লাগে বুকে
       চোখ বুজে ভাবি মহাসুখে
              জানি না কী যে তার মানে,
চঞ্চলা মৃগীসম
        ছুটে চলে মন মম
              পিছু ফিরে বারে বারে চায়
              কাহারেও দেখিতে না পায়।