যে কল্যাণময়ী, রূপশ্রী ও অকৃপণ
অকাতরে যে অন্ন যোগায়, বঙ্গবাসি
রৌদ্রখর তপ্তদাহ উপেক্ষা করতঃ
আল ঘেঁষে বসে বলে, "হেমন্ত রূপসী।
লক্ষ্মী সে, শুভাশীস সে, ঢালিছে কেবলি
কনক আভা, ভারা ভারা রাশি রাশি
ধানে আর ধনে, তুলিছে ভরি এ ধরা।"
চোখ চকচকে, খেলে স্বপ্ন ফোটে হাসি।

 এ ঘন অঘ্রাণে দেখ শান্তি চরাচরে।
 ভরা ক্ষেত, মৌমৌ গন্ধ, যেন কেউ গাহে
 ‎গান, তার গন্ধতুর কন্ঠখানি মেলি;
 ‎শব্দহীন গতিহীন স্বাধীন উদার
 কেবলই তাহা শ্রান্ত দিগন্ত প্রসার 
 যেন লক্ষ্মী দিয়েছে সোনালী ডানা মেলি।’

বি:দ্র: চতুর্দশপদি রচনার ব্যার্থ চেষ্টা।