চাঁদনী"র চন্দ্র গ্রহণ
               রামপ্রসাদ(হলুদ ঘাস)
ফুটফুটে চাঁদনী চৌদ্দে পা,নবম শ্রেণী ! মেধাবী
মাথার বেনুনিতে শিউলিফুল,রূপে চাঁদ ও চাঁদনী
মিল খুঁজে পাওয়া যায়!
মুক্ত হাসি,কাজল চোখে নজর এড়াতে মা" মমতা -কনিষ্ঠ আঙুলের নখ কেটে থুতু ছড়িয়ে দিতেন!
পুজো আসতে আর এক সপ্তাহ বাকি , কাশ,শিউলি,ভোরের শিশির পুজোর গন্ধে মন ভিজিয়ে দেয়! দাদা স্নেহাশীষ, আদুরে বোনের জন্যে মনের মতো পোষাক, অলংকার ও হাত ঘড়ি কেনা হয়েগেছে! ভিন রাজ্য থেকে শুধু আসার অপেক্ষা ! চাঁদনী পাশের পাড়ার বান্ধবীকে ওই সুখবর দেওয়ার জন্যে পৌঁছে যায় ! দরজার কাছে খুশি "র নাম ধরে ,, আমি চাঁদনী ...দরজা খোল ! ভেতর থেকে কোনো উত্তর আসেনি ! আমি চাঁদনী,,,,,আসছি ,,,,ও চাঁদনী তুই! ভেতরে আয়, পুজোর কয়েকটা দিন একসঙ্গে কাটানোর অঙ্গীকার করে বাড়ি  ফিরছে চাঁদনী ,বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যে । বাক স্বাধীনতা থেকে মাদক দ্রব্য শহর থেকে গ্রামে প্রকাশ্যে ! প্রতিবাদ নেই আছে রাজনৈতিক মদত কারি সঙ্গে সরকারি লাইসেন্স। রাস্তার পাশে দেশী মদের দোকান শুনেছি সরকারের আয়ের এটাই উৎস।
দূর থেকে  কয়েক জন অনুসরণ করছিল কিন্তু সরল সহজ গ্রাম্য মেয়ে বোঝেনি চোখের ভাষা ! জন সমক্ষে তিনজন যুবক ক্ষুদার্থ নেকড়ের মতো তুলে নিয়ে যায় পরিত্যক্ত ঘরে । ওর চিৎকার পৌঁছায়নি ওদের কাছে  নেশার অন্ধকারে বধির !চাঁদনীর আশা,স্বপ্ন কালমেঘে ডেকেছে ওর জীবনে  অমাবস্যা কেটে কোনোদিন মনের আকাশে চাঁদ আর উঠবে না ।
বুকের ভেতর নখের গভীর আঁচড়
ক্ষত বিক্ষত হৃদয় ,
দাঁড়িয়ে থাকা তামাটে দেওয়াল
নোনাধরা ঝরা ঝরঝরে স্মৃতি
কামারের পেটানো জ্বলন্ত লোহার
আর্তনাদ!
ক্ষুদার্থ হায়নার লোভার্থ, কাল বৈশাখীর
প্রশ্বাস চান্দিনী"র চন্দ্র গ্রহণ !