একটা যুবক হাসছে হাসি একলা একা,
জীবন নিয়ে খেলছে সেকি নিঠুর খেলা ।
কেউ দেখেনি কাঁদলে তারে কেমন লাগে,
কেউ দেখেনি সাজলে তারে কেমন লাগে ।
কোন শোকে তার শাশ্বত সুখ কেউ জানে না,
কোন সুখে এই শাশ্বত দুঃখ কেউ জানে না ।
বর্গা চাষী এই ছেলেটার চাষাবাদের ঘারস্তালি
বসতবাড়ি, আবাদ জমি, গোলাপ বাগান
হারিয়ে গেছে ফুরিয়ে গেছে
কেউ জানে না ।


শীতের রাতে কেন শার্টের বোতাম খোলা,
কেন তোমার সারা গায়ে লেগে আছে পথের ধুলা,
পথে পথে ঘুরছ কেন ছুটছ কেন খালি পায়ে,
কোন গাঁয়ে বাড়ি তোমার, কেন তুমি ভিন্ন গাঁয়ে
কেউ বলে না ।


কেউ বলে না কেমন আছো, কোথায় আছো
আজ বিকেলে হয়নি কথা, রাগ করেছো
একটু পরেই বাড়ি ফিরো রাত করনা,
ভাইয়া বাসায়, ফোন রাখতে হবে রাগ করনা
সকাল-সকাল ঘুমিয়ে পড়ো, সকাল দেখো
খাবার খেয়ে শুতে যেও, ঔষধ খেও
কেউ বলে না, কেউ বলে না ।


বলতো যেজন সেজন আমার জীবনটাকে হারিয়ে দিয়ে
হারিয়ে গেছে ।