সালিশ সালিশ আহা আজব সালিশ
চন্দ্রগ্রামে সালিশ ডাকছে পঞ্চ মাতাব্বর
পাঁচকুড়ি টাকা জুটছে দাগির নাই খবর
আহা আজব সালিশ, আহা আজব সালিশ।


কেরানিবাজার বারবেলাতে রমরমা হাট হয়
আবুল কসাই গোস্ত বেচে বেবাক লোকে কয়,
যে দেখেছে আবুলের কসাই কারবার
গরু পালা দিছে ছাইড়া সালাম শতবার।


হঠাৎ রাতে আবুল কসাই করিমকে বান্ধিয়া
সাধের গরু ছিনিয়া নিল দলবল নিয়া,
করিম মিয়া নালিশ করল মাতাব্বরে গিয়া
আবুল কসাই আমার গরু  নিছে ছিনিয়া।


মাতাব্বরে এলাকাজুড়ে ডাকিল সালিশ
সাক্ষীদাতাও আবুল থেকে পাইল বকশিশ,
নালিশদাতা অবাক করিম শ্রবণ করিল
বিনা দোষে অপবাদ করিমকেই দিল।


নালিশদাতা চিৎকারে কয় এ কেমন সালিশ!
আবুল চোরে হাজিরতো নাই, মানিনা মজলিশ,
সাক্ষীদাতা জোরগলাই কয়, তোর কিসের নালিশ
আমার সামনে গরু বেচে টাকা নিছিস।


পায়ে বেড়ী মুখে লাগাম মনে ভীষণ ভয়
আমজনতা দাসীহোতা হ হ করে সয়,
এই ধারাতে মাতাব্বরের মাতাব্বরি হয়
যবে ইনসান মজলুমি আহবানে রয়।


মাতাব্বরের মাতাব্বর আছে সর্ববিচক্ষনি
অবমানিতের মান তিনি, তিনিই মহাজ্ঞানী,
সুকর্ম সুবিচার যেজন করেনি
যেমন কর্ম তেমন হবে, মহান স্রষ্টার বাণী ।।