তকদিরে বিশ্বাস অপরিহার্য
তকদিরে দোষারোপও পরিত্যাজ্য।
তকদিরে যা থাকে লিখন
তাই মানন মানব ভূষণ,
খোদা তোমায় দিয়েছে যেমন
তাই-ই সদাই করিও আপন।


তবে, ভবিষ্যৎ অনিশ্চিয়তা- জেনেছো তুমি নিশ্চয়
তকদিরের পানে চেয়ে করোনা জীবন পরাজয়।


পা বাড়ালে হেটে চলে
হাত নাড়ালে নড়ে চলে,
মুখ নাড়ালে কথা বলে
চোখ মেলিলে দেখা মিলে।


যদিও খোদার জানা
তকদিরের জালে বুনা,
তবুও সদাই করতে হবে
আপন কর্ম সাধনা।


ভাগ্যের ফুলঝুড়ি আপনা আপনি ফলেনা
প্রাণবন্তর উসিলাতেই ভাগ্যের ঠিক- ঠিকানা।


কি হবে কি হবেনা
সেটা আসল বিষয় না,
মানুষের যা হবার হবে
জানে কেবল রাব্বানা।