ভাবছি বিশ্বরাজনীতির একাল-সেকাল,পরকাল নিয়ে।
ঠাণ্ডাযুদ্ধের সমাপ্তি ঘটেনি এখনো,
পারমানবিক যুদ্ধ,বাণিজ্যযুদ্ধ লেগেই আছে...
জীবাণু অস্ত্রের ঝনঝনানী কবে নাগাদ বুঝি!
বাস্তববাদ  কিংবা উদারপন্থীবাদ একটা দীর্ঘস্থায়ী অস্থিরতা!
অনেক চড়াই উৎরাই পার করেছি আমি।
নতুন বিশ্বব্যবস্থার উদ্ভবের ক্রান্তিলগ্নে এসে-
একটা নতুন ভূ-রাজনৈতিক চেতনা দুমড়ে-মুচড়ে ফেলছে সবকিছু।
বিশ্বযুদ্ধের পরে দেখেছি সমগ্র বিশ্বটা  যুগল শিবিরে বিচ্ছিন্ন।
শুধু কি তাই? দেখেছি  দ্বিমেরু থেকে বহুমেরুর দাপট!
অস্ত্র প্রতিযোগিতা, স্পেস রেস, প্রক্সিযুদ্ধ আজও বহাল তবিয়তে।
বোধহয় সেটাও টিকে থাকবে না;নতুন করে মোড় নেবে জল্পনা-কল্পনার!
নাক গলাবে অন্য কোন শক্তি;কেউ কাউকে গুনবে না আর।
ভাবছি বিশ্বরাজনীতির একাল-সেকাল,পরকাল নিয়ে।


ওয়াশিংটনকে টেক্কা দিচ্ছে  আজ মস্কো কাল  হয়তো অন্য কেউ,
বেইজিং যেন বলছে - খেলা হবে...
কদিন বাদে সেটা থাকবে না আর;সমীকরণ যাবে পাল্টে!
বাকস্বাধীনতা  আজ নিয়ন্ত্রিত ;উদ্বেগের পারদ যেন ওঠা-নামা করে।
সবকিছু আজ মৃত্যুপুরীতে করোনাভাইরাসের প্লাবনে।
অর্থনীতির শক্ত কাঠামো  ভেঙে পড়ছে একেবারে মুখ থুবড়ে!
তবু দাপট সরে যায় নি  উন্মাদ  আধিপত্যবাদ;
রাজনীতির খামখেয়ালী দাপট ।
ভাবছি বিশ্বরাজনীতির একাল-সেকাল,পরকাল নিয়ে।


ট্রাম্প প্রশাসন নেই আর; এসেছে ভিন্ন কেউ তারপর আসবে অন্য কেউ।
রাজনীতির রথী-মহারথীরা  খোলস বদলাবে জানি,
রাতারাতি সম্পদের পাহাড় গড়বে সেটাই স্বাভাবিক।
রক্ষণশীলতার দিকেই বেঁকে যাবে  সব, সবকিছু!
শুধু তলানিতে পড়ে থাকবে মানবতা।
পরিবেশ দূষণ থেকে প্যানডেমিক দাপাদাপিতে ধাক্কা খাবে গোটা দুনিয়া।
সবাই সব জানে ;শুধু আমি জানি না।
জনপ্রিয়তাকে বাড়িয়ে তুলবে করোনা-হাতিয়ার,
চমকে উঠবে নামি-দামী প্রশাসন।
ভাবছি বিশ্বরাজনীতির একাল-সেকাল,পরকাল নিয়ে।


ধর্ষিত  হবে সংবিধান একের পর এক ,পাকাপোক্ত হবে ক্ষমতা!
বিরোধীদের দমন-পীড়ন কোন অলিখিত ইতিহাস নয়,
পবিত্র থাকবে কি করে?কূটনেতিক তৎপরতা বেগবান হবে আরো,
দুরন্ত ঘোড়ার মত ছুটে চলবে...
তবু ঋণের ফাঁদে জরাজীর্ণ হবো এই আমি,নিদারুণ নিষ্ঠুরতায়!
আমি দেখেছি মধ্যপ্রাচ্যনীতি আর বিতর্কিত ইস্যুর খেলা;
দেখেছি উদার গণতন্ত্র থেকে স্বৈরতন্ত্র অবধি।
বুঝতে পেরেছি ঈশপের গল্পের সেই পেট রাজনীতি;বডি পলিটিক্স।
বিশ্বরাজনীতির কলকাঠি কে নাড়বে আর কে আঙুল চুষবে,
এতসব জেনে হয়তো আমার কোন লাভ হবে না।
ভাবছি বিশ্বরাজনীতির একাল-সেকাল,পরকাল নিয়ে।


বিশ্বাস করো বাইডেন-হ্যারিস প্রশাসন নিয়ে -
আমার কোন মাথাব্যথা ছিলনা; নেই বেইজিং ভাবনা,
না ক্রেমলিন,না পিয়ংইয়ং আর না তেলআবিব।
নেই কোন সাংঘর্ষিক মতবাদ ,অলিগার্কিক চিন্তা-চেতনা।
আজ আমি দুঃশাহস দেখায় ;চরম দুঃশাহস!
নিজেই নিজেকে স্বীকৃতি দেই দুর্দান্ত কবি ।
পাইলট ফিস বিহেভিয়ার থিউরি নিয়ে পড়ে থাকি,
ভাবছি বিশ্বরাজনীতির একাল-সেকাল,পরকাল নিয়ে।


বিগ ব্যাং এর আগে থেকেই  আমি রাজনীতি করি।
সব সভ্যতাই পার করে এসেছি আমি পরিবর্তনের ভেতর দিয়ে।
সব দার্শনিকের সাথেই আমার সখ্যতা আছে;ভীষণ সখ্যতা!
এখন অবশ্য  হুগো গ্রোশিয়াস,মর্গেন্থু,মোইসি
আর মিশেল ফুকুকে নিয়ে পড়ে থাকি।
ভাবছি বিশ্বরাজনীতির একাল-সেকাল,পরকাল নিয়ে।


মধ্যপ্রাচ্যের রাজনীতি বুঝতে পারলেই সবকিছু হয়নারে পাগলা,
আশি পার্সেন্টতো বহু দূরের কথা!
মুসলমানদের উপর নির্যাতন হলেই বলা যায় নারে পাগলা,
আমি কিন্তু  আল্লাহকে সব বলে দেব  !ঐ যে সেই ছোট্ট শিশুর মতন।
জাতিগত বৈচিত্র্য,রক্তক্ষয়ী গৃহযুদ্ধ,সংঘাত আজ অনিবার্য!
কাবো ডেলগাদো নিয়ে কে ততটা ভাবে এখন
সবাই পড়ে থাকি  কাশ্মীর-উইঘুর নিয়ে!
সেটাও আজ চাপা পড়েছে করোনার কষাঘাতে;নোভেল-করোনা!
আমিতো জানি-লকডাউন,হোম কোয়ারেন্টাইন,
প্যানডেমিক এগুলো আর  নতুন শব্দ নয়
ভাবছি বিশ্বরাজনীতির একাল-সেকাল,পরকাল নিয়ে।


ফরেন পলেসি কিংবা কারো রক্তচক্ষু দেখে  ভয় করি না আমি!
এমভি সমান ওয়াইপি সমীকরণ যেন জটিল সমীকরণ।
যুদ্ধের দামামা বাজিয়ে অস্ত্র বিক্রি,কোয়ালিশন সরকার গঠন,
পুরো বিশ্বব্যবস্থার পরিবর্তন আমি নিজ চোখে দেখছি।
সামরিক ঘাঁটি  ,ড্রোন হামলা কিংবা যুদ্ধবিমান,
এসব আর নতুন কিছু নয় ;নিতান্তই সেকালের।
ভাবছি বিশ্বরাজনীতির একাল-সেকাল,পরকাল নিয়ে।


ইমাম মাহ্দী,দাজ্জাল ;না থাক!
সেটা বললে  হয়তো আর কবিতা হয়ে উঠবে না;কাব্য সৃষ্টি হবে না!
বাহ্ রাষ্ট্র বাহ্-এই দেখি কারো বন্ধু এই আবার শত্রু!
বুঝি না কিছুই আমি; বুঝি না রাজনীতি!
সেটাই এখন দেখার বিষয়-বিশ্বরাজনীতি।