বলো তোমরা, শ্রমিকেরা আর কতো খাবে মার
দু বেলা দু মুঠো ভাতের জন্য
সইবে তারা কতো অমানবিক অত্যাচার ।
কলের চাকা সেতো দেখি থাকেনা থেমে
শ্রমিকের কষ্ট ঝরা ঘামে চলে কারবার
তবে কেন তাদের ভাগ্যের চাকা থেমে যায় বারবার ?
দিবা-নিশি তারা যদিও করে কাজ
মালিকেরা হয় আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ
তবু তাদের বেতন নিয়ে কেন চলে ছিনিমিনি ?
অধিকারের দাবী তুললেই
কেন আসে চলে টিয়ার গ্যাস, জল কামান
সাঁজোযা যানে পেটোয়া বাহিনী ?
বলি এসব দাও বাদ
দাও শ্রমিকের নায্য অধিকার
শ্রমিকের গায়ের ঘাম শুকানোর পূর্বে
করো পরিশোধ বেতন ভাতা তার ।
দাস প্রথা যাও ভুলে
রক্ত চোষা জোঁকের চরিত্র করো পরিহার
মালিক-শ্রমিক সু-সম্পর্ক গড়ে
এগিয়ে নাও অর্থনীতি এই বাংলার ।