সুখের তরে, দেশে দেশে ঘুরে, খুজে পাইনি সুখ,
অবশেষে ফিরে যে দেশ ঘুরে পেলাম সুখের মুখ।
যেদেশে প্রভাতে, আম্রকাননে, শুনি গুন গুন গান,
কোকিলের কুহুরবে, ভ্রমরের গুঞ্জনে জুড়ায় আমার প্রান।
ঝোপে ঝাড়ে বসে, টোনাটুনি মিলে পাতায় সাজায় বাসর,
বাবুই পাখিরা তালের গাছে বসায় প্রেমের আসর।
বিহান বেলা ঘুম ভাঙ্গাতে ডাকিতে থাকে কাক,
সন্ধ্যেবেলায় কিচিরমিচির করে শালিকের ঝাক।
বৈশাখ মাসে কৃষ্ণচুড়া আকাশ করে লাল
কালবৈশাখী ঝড়ে গাছের আম দিতে চায় ফাল।
আষাঢ় মাসে বৃষ্টি চালে রিমঝিমঝিম বাজে,
গাছে গাছে সব কদম ফুল নতুন বধু সাজে।
শরতের আকাশে মেঘের শুভ্রতা হৃদয়ে দেয় সস্তি,
কাশবন যেন আকাশের সনে গড়েছে নিবিড় দস্তি।
হেমন্তকালে ফসলের মাঠ, যেন হলুদের সমাবেশ,
বুঝেছ কি তুমি, মাঠের পাকা ধানে ভরে যায় সারা দেশ।
শীতে কোয়াশায় চাদর গায়ে বাড়ির বাহিরে গিয়ে,
কিযে মজা, আগুন জালিয়ে, আর খেজুরের রস খেয়ে।
বসন্ত ফুলের গান গেয়ে গেছে আমাদের বিশ্ব কবি,
আমি আর কি বলব, এদেশ যেন পুরোটাই রঙ্গিন ছবি।
যেদেশের রুপ বর্ণনা করে কেউ করতে পারেনি শেষ,
সে আমার প্রিয় জন্মভূমি, সোনার বাংলাদেশ।