মানুষের ঘরের পাশেই আর একটা ঘর  থাকে;
সেই ঘরে মানুষ তার বিবেক--মূল্যবোধ রাখে।
সেই ঘরখানি মানুষের বিশ্বাসের উপর দাঁড়িয়ে;
মানুষের অহংকার  বিশ্বাস আর মূল্যবোধ নিয়ে।
ঘর খানি ভেঙে গেলে  মানুষে মানুষ থাকে না;
চেনা-জানা লোক হয়ে যায় ক্রমশঃ বিবর্ণ অচেনা।
বিশ্বাসের ভিত নড়ে হলে,লজ্জায় লুকোয় মুখ নদী;
পাশে আর মানুষ থাকে না,বিশ্বাসের ঘর ভাঙে যদি।
বিশ্বাসেই  চাঁদ ওঠে, আর হেসে ওঠে ফুলের বাগান
বিশ্বাসেই জমে ওঠে , রাগ-অনুরাগ--মান অভিমান।
বিশ্বাস হারায়নি তাই নদী হেঁটে যায় সমুদ্রের দিকে;
বিশ্বাস হারালেই পৃথিবীর রঙ হয়ে হয়ে যায় ফিকে।
বিশ্বাসী হাতেই কবির কলমে শব্দলিপি উঠে আসে,-
উঠে আসে কবিতা-বর্ণমালা-গান,হৃদয়ের উচ্ছ্বাসে।
বিশ্বাসের ঘরে থাকে স্বরলিপি ,অনুভবে ভালবাসা ;
বিশ্বাসেই কবিতার জন্ম,শব্দলিপি , ধ্বনিময় ভাষা।


                        --০--