পলাশীর ওই ব্যর্থ যুদ্ধে, যে বাংলা হলো গোলাম
সেই বাংলাকে স্বাধীন করায়, মুক্তিযোদ্ধাদের লাল সালাম
একদা যারা করেছে জুলুম, আমার দেশের মানুষের
ভুলিনি মোরা, করিনি ক্ষমা, আর তাদের প্রেতাত্মাদের।


মায়ের ভাষা কাড়তে যারা, দিয়েছিল কঠিন ফরমান
মুহূর্তে তখন গর্জে ওঠে, দামাল বাঙালী সন্তান
রুখে দিয়ে সব, বুকে নিয়ে বুলেট, রক্ত ঝরা একুশে
একুশের ঋণ ভূলবেনা জাতি, যা ছড়িয়ে আজ বিশ্বে
শাসন-শোষণ, অত্যাচার দিয়ে, রেখেছিল দুটি যুগ
দেয়নি অধিকার, করেছে অবিচার, সকল পাক হিংসুক।    


শহীদ সোহরাওয়ার্দী, মাওলানা ভাসানী, শ্রদ্ধায় স্মরি যাদের
চরম সময়ে মুজিব-শামছুল, আরও সহ যোদ্ধা হল তাদের
হাঁকিল নেতারা, এক হও সব, এসো আওয়ামীর মিছিলে
শুনে কেহ আর রহিল না বাকি, যোগ দিল দলেদলে
কৃষক-শ্রমিক, ছাত্র-যুবক, আর ছিল যত যারা
শপথ নিল,‘ ফিরবো না ঘরে-দাবী আদায় ছাড়া’।


ছেষট্টি সালের ছয় দফা থেকে পরের যত অভ্যুত্থান
সকল আন্দোলনের নেতৃত্বে ছিল, শেখ মুজিবুর রহমান
জীবনের মায়া তুচ্ছ করে তিনি, দেশের জন্য দিলেন ডাক
ডাক শুনে বাঙালী হুংকার দিল, পাকিস্তান নিপাত যাক
কোটি বাঙালীর প্রিয় নেতা মুজিব, ‘বঙ্গবন্ধু’ ও হলেন
সাতই মার্চ রেচকোর্চে তিনি স্বাধীনতার ঘোষণা দিলেন।


বাঙালী নয় ভীরুর জাতি, একুশে তে হয়েছে প্রমান
জীবন দিয়ে ইতিহাস গড়ে, দেশের জন্য রেখেছে মান
স্বাধীনতার জন্য ক্ষেপা বাঙালী, অস্ত্র হাতে নয়টি মাস
পাক-সেনার সাথে যুদ্ধ করে, দেখিয়ে দিয়েছে দু:সাহস
বাঙালীরা হলো সাহসের জাতি, বাঙালীরা হল বীর
যে লক্ষ বাঙালী শহীদ হয়েছে, তাদের শ্রদ্ধায় নতি শির
প্রিয় নেতা যারা নেতৃত্ব দিয়েছে, এই বাংলাদেশের জন্য
হাত তুলে দোয়া করি, তাদের বিদেহী আত্মার জন্য  ।।