আহলান সাহলান -মাহে রমাদান
নাজিল হয়েছে এ মাসে, মহা গ্রন্থ আল কোরআন
রহমতের সওগাত নিয়ে, সিয়ামের আগমন
বছর ঘুরে মাসটি পেয়ে, খুশিতে মুমিনগন
অসংখ্য ফযিলত আছে, পুরো রমজান মাস জুড়ে
সিয়ামের প্রতিদান দিবে, মহান আল্লাহ স্বয়ং হাতে ।


‘লাইলাতুল কদর’ পাবে, শেষের বেজোড় রাত্রি
যে রাতের মর্যাদা হলো, হাজার মাসের চাইতে বেশি
মুমিন যারা করেনা হেলা, তালাশ করে কদরের
আবার এতেকাফে বসে কেউ, আরজ করে পরওয়ারের
মাফ কর মোর সকল গুনাহ, আমি যে বড় গুনাহগার
তুমি আল্লাহ অসীম দয়া, ক্ষমা কর এ পাপী বান্দার ।


প্রথম দশে আছে রহমত, পরের দশে মাগফিরাত
শেষ দশেতে ইবাদত করে, পেতেও পারি নাজাত
নেয়ামত আছে, বরকত আছে, ক্ষমা আছে রমজানে
বছরের এই মাসটি যেন, জীবনে পাই বারে বারে
পবিত্রতা সাথে নিয়ে, সাবধানে করি সকল কাজ
রমজান হলো তাক্ওয়া ও সংযমের প্রশিক্ষণ মাস ।


দিনে ফজর-জোহর-আছর সন্ধ্যায় আসে মাগরিব
রাতে এশার সালাত পরে, পড়তে হয় তারাবীহ
শেষ রাতে সাহরী খাওয়ায়, আছে যেমন বরকত
দিনের শেষ ইফতারীতেও, থাকে আনন্দ-রহমত
রহমতের এই মাসে, যদি করাই কারো ইফতার
কেয়ামতে থাকবেনা কষ্ট, পান করাবে কাউছার ।


রমজান মাসে খুলে দেয়া হয়, জান্নাতের সকল দ্বার
আবার জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেয়, অগণিত পাপীদের
এই মাসের ইবাদত ও দানে, সত্তর গুন সওয়াব বেশি
নফলের মান ফরজের সমান, ফরজ অন্য মাসের ৭০টি
রমজান মাসের সিয়াম শেখায়, আত্ম শুদ্ধির শিক্ষা
যে শিক্ষা ধারণ করে, পরের এগারো মাসের পথ চলা ।।