দেশের কথা, মানুষের কথা আর প্রেমের কথা লিখতে ইচ্ছে করে খুউব।
পরাধীন বাংলায় কাজী নজরুল যেভাবে লিখেছেন;
সুকান্ত যেভাবে লিখে গেছেন ক্ষুধাময় বিশ্বে;
সেরকম লিখতে চাই।
জীবনানন্দ দাশ, জসীমউদ্দীন আর রজনীকান্তের মতো লিখতে পারতাম যদি।
রবি ঠাকুরের অমর লেখনী যদি থাকতো আমার হাতে!
হতে পারতাম যদি শামসুর রাহমান, আল মাহমুদ, নির্মলেন্দু গুণ কিংবা একজন সৈয়দ শামসুল হক।
তেজদীপ্ত হাসান হাফিজ, রুদ্র কি আছর করতে পারেন না আমার উপর!
আবুল হাসান স্বপ্ন তো দেখাতে পারেন  আমাকে।
সুধীন্দ্র নাথ দত্ত, বুদ্ধদেব, বিষ্ণু, শক্তি, সুনীল কিংবা রফিক আজাদের মতো হতে পারি না কেন?
শঙ্খ ঘোষের মতো যদি নেংটা করতে পারতাম!


কেন পারি না আমি  কিছুই হতে, কিছু করতে?
সাহস নেই তাই।
নেই ভালোবাসা, নেই প্রেম, শুধু পেতে চাই আর হতে চাই;
দিতে চাই না কিছুই।
ঘুরে দাঁড়ানোর ইচ্ছেটুকুও নেই।
নেই মন আর মননের সমন্বয়।
বছরের পর বছর লিখে যাবো আর বেড়ে যাবে আবর্জনার স্তুপ!
কবিতা হবে না, হবে না হীরন্ময় সৃষ্টি কোনো!
জোর করেই কবি'র তালিকায় নাম ঢুকাবো শুধু;
হারিয়ে যাবে কদিন বাদেই, যখন আমি থাকবো না।


রচনাকাল: ঢাকা, ১৪ জুন ২০১৯