গরম তেল আর পাঁচফোড়নে ফুসলে উঠে মসুর ডাল;
দূর থেকে তাই ফোড়ন কাটে চিকেন-মাটন-গরুর পাল।
ঝাল মশলায় চিকেন কারির গোস্ত জিবে বাড়ায়  স্বাদ;
গরীব মানুষ মসুর ডালে মিটায় মনের সাধ-আহ্লাদ।


ছাগল হলো মাটন কাবাব, গরু শাহী মসাল্লাম;
মশলা যতো খুশবু ততো, কুক-বাবুর্চির ছুটে ঘাম।
রসুইঘরে মাটন হয়েই দৌড়ে ঢুকে ছাগল-ভেড়া;
সরষে বাটায় সরষে ইলিশ খানদানীতে সেরার সেরা।


আলু ভর্তা, বেগুন ভাজিই রোজ জুটে না গরীব ঘরে;
মাটন কারি, রোস্ট কাবাবের স্বাদ পাবে আর কেমন করে!
পাতিলভরা গরম পানি, এক মুষ্টি মসুর ডাল;
পামঅয়েলে পাঁচফোড়ন আর কাঁচা লঙ্কার একটু ঝাল।


অর্থকড়ি হাতে এলেই ঘুমের ঘোরে প্রলাপ বকে;
কষ্ট করেই মসুর ডালের আমিষ কিনে হঠাৎ শখে।
তবু তারাই সবচে সুখী, চান্দাবাজির ধান্দাতে নেই;
হুক্কা হুয়া ডাকছে শেয়াল, মুরগি চুরির আনন্দেই।


রচনাকাল: ঢাকা, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১।