অন্ধকারে ডাকিতেছে গম্ভীর কাক_
কালো পালক খসিয়া পড়িতেছে এসিডের উত্তাপে;
আমার গায়ের মাটি গুলো_
লাবার মত গলিতেছে মৃত্তিকার ভিতরে।
বৃক্ষরা নিশ্বাস ছাড়িতেছে না আমার নাকে,
ডাকিতেছে মৃত্যুরা কাক ডাকা অন্ধকারে।
ঢলে পড়িতেছে চোখ কালো হয়ে_
সবুজ ঘাসেরা ধূসর হয়ে চুষিতেছে আলো,
অন্ধকারে ডাকিতেছে বৃদ্ধ বৃক্ষেরা—চোখ ভুজের
শুকনো পাতারা ছাই হয়ে আছে কালো।


মাংসে মিশে আছে মাটি—মাটির শরীরে
পঞ্চ ইন্দ্রিয় বন্ধ হয়ে আসে; পাশে থাকিবে না কেউ
মৃত্যুর কোলে আমি! আমি কে, কে আমি?
অন্ধকারে ডাকিতেছে গম্ভীর কাক_
ধূসর ঘাস ভিজিতেছে গলিত মাংসের পঁচা পানিতে,
হাড় গুলো আলাদা হয়ে রবে—মৃত্যুর পরে।


মাটির গলিতে শুধু মাটি; আর মাটির শরীর
আমায় ডাকিতেছে অন্ধকারে গম্ভীর কাক_
শরীরের সাথে শুধু শরীর; আর উৎপাদিত ফসল
বাতাসে ভেসে যায় সৃষ্টিকর্তার কাছে।