যাকে সর্ব অগ্রে ব্যসন-বিষাদ হর্ষে
ছায়া তুল্য পরশ পাথর সদা আমার পাশে,
যার কোমল পরশে সর্ব বিষাদ-তমঃ
বিনাশ ঘটে হর্ষ জাগে অন্তরে মম।
রূপে রসে গন্ধে ভরা সুখের ছোঁয়া মনে
যার হেতু চিত্ত হর্ষে টলমল এই ভূবনে,
ক্রন্দনে মুছ মাগো আঁখি জল আঁচলে
আদর-স্নেহে সদা মাগো তব লীলা চলে।
মাগো ডাকে তৃপ্তি মেলে জুড়ায় যে পরাণ
সুখে-দুঃখে-হর্ষে মাগো মন এ নারান,
মাগো তোমার হৃদয় অঙ্গে অমৃত সুধা
সিন্ধুর চেয়ে বিশাল মাগো উপচে পরে সদা।
অসুখ-বিসুখে থাকো মাগো অনিদ্রা অনাহারে
সতত দোয়া মাঙ্গ প্রভূ করতার দ্বারে,
দূরে গেলে মাগো থাকো চক্ষু কর্ণ পেতে
আসবে প্রাণের খোকা মাগো! ডাকে মেতে।
গর্ভ থেকে ভূ-তে  পরে ছিলাম যখন অবুঝ
স্বার্থ নাশে প্রণয় কর, হোকনা খোকা সবুজ,
দুঃখ-ব্যথা-যন্ত্রণায় সম ভাগে ভাগী
দোয়া মাঙ্গ মাতা সন্তানের লাগী।
ব্যসন-বিগ্রহে মাগো তুমি পরম ত্যাগী
তাই-তো মাগো তুমি প্রাণের জননী।
---"অন্তকীর্তি" কাব্যগ্রন্থের অন্তর্গত।
(প্রথম প্রকাশ - ২১শে বই মেলা ২০১৬)