শক্ত হাতে উঠছে হাওয়ায় শব্দ প্রকট বিদ্রোহে
তীক্ষ্ণ রবির রক্ত চোখে ছাপোষা কেন দিন শয়ে
নোনতা ঘামে পাগড়ী ভেজে চিহ্ন তবু নাই থলায়
মাসের শেষে তালায় ফেঁসে দোলনা দড়ি পায় গলায়
ঠাণ্ডা ঘরে গন্ডা চারে কোট বুটেতেই কারখানা?
জনন ঘরে যন্ত্র পরে ক্ষইছে দাসের হাড়খানা
বংশগতি গদির পরে সহজ ঢালু রাজপথে
দীনের ছেলে ভিক্ষা করে একই রাহের ফুটপাথে
দিন থেমে বয় শনির বলয় ভিজছে ঘামে খদ্দরে
গতর খাটায় ইতর মানুষ বুদ্ধি খাটায় ভদ্দরে!
সোনার গণেশ লাড্ডু লোভে ঠাণ্ডা বাড়ি ছাড়েন না
মাটির গণেশ নকুলদানায় একটিবারও চাখেন না
মজুরিতে মালিক সাজে বারণ, তবে কারণ নেই
সুতোর টানে কোমর দুলে কাঠের পুতুল নাচছে ধেই
কেমন তোমার দাবিদাওয়া কিসের তরে অবগত
এমন দাবী মিটলে পরে পাল্টে যাবে ভাগ্য তো?
চিন্তা মাথায় গুল্ম ন্যায়ে বটের তলায় দেহান্তর
মিথ্যা আশা যমের নিকট স্বর্গে দেবে তেপান্তর
একশো ফুটের লম্বা বাড়ি অমরধামের অদূর প্রায়
অল্প খরচ স্বর্গে পাচার, চালার চালান নরক ভায়।।