বিবসনা সুখ---
-- সৌগত রাণা কবিয়াল


আহা শহরটা চকচকে,
নতুন নোটে যেন বিকিকিনির উৎসব !
সাধের সীমা ভীষণ বোকা,
চাই চড়া দামের শিক্ষা সনদ !
ওহে ক্ষুদিরাম, দেখে যাও বাপু,
কি দারুন জমছে খেলা !
মেয়েটা কদিন আগেও শিশু ছিলো,
এই কটা রাত আগেও,
কোলে নিলে এখনো মায়ের গায়ের গন্ধ মেলে !
আহ, নেতাজী সুভাষ চন্দ্র,
কি দারুণ এই ভারত !
কদিন চোখে কালশিটে ভয়,
কার কি তাতে?
মেয়ে আমার বড় হবে,
দামী স্কুলের সনদ পাবে !
বাবার খাটুনি, মায়ের স্বপ্ন,
পাড়ার আদরের টুকটুকি,
আজ খবরের শিরোনাম?
ও কোথাও খুব ভালো গান গাইলো বুঝি?
না না,হয়তো আর্টে একটা দারুন পুরস্কার নিশ্চই?
হতে পারে দাদাগিরিতে বাজিমাৎ,
নচেৎ সারেগামাপা ক্ষুদে গানরাজ?
কিছু তো একটা বটেই?
মেট্রো দিয়ে ঘিরবে শহর,
পথে পথে বাগান,
আহ, কি দারুণ বাঁচিয়ে বাঙ্গালি,
ফুচকা ভুলে বার্গারে !
আরে,বাপু নাকি?
কাঁদছো বুঝি?
এমা কেন কেন ?
শিশুটাও আজ নারী হয়ে গেলো?
যে পাঠশালায় আশির্বাদ বাস করতো একসময়,
এখন সেখানে রক্তের লাল ?
না,বাপুজি, না,
আমরা তো মেনে নিয়েছি,
মন্দ ভালো সবটুকুই !
শহরে অট্রালিকার সংখ্যা বাড়ে,
তার সাথে পাল্লা দিয়ে মায়ের মন্দির !
মাগো, মাগো,
আমি বুঝি নষ্ট পিতা?
নইলে কেন আমার সোনাই ভয়ে কাঁদে ?
আমার কিচ্ছু বলার নেই,
একদম না,
টিভিতে তো হরদম হচ্ছে প্রতিবাদ,
শহরে মিছিলের ঢল,
শক্ত মুখে মানুষের গম্ভীর কথা,
"শাস্তি চাই,শাস্তি ! "
কিন্তু কার শাস্তি?
সেই পুরুষ নামধারী দুই নপুংসকের,
না দেখেও না দেখা এই নামী বিদ্যাপীঠের,
নাকি যে জাতি সদ্য ভাত ভুলে পিৎজা খেতে শিখেছে,
তাদের?
না, না, এরা কেও কিছু করেনি তো,
শাস্তি দাও আমাকে,
হ্যাঁ,হ্যাঁ, এই আমাকে,
কি করে আমি জন্ম দিলাম এই নরকে ওকে ?
কি করে?
নিজের পুতুল সাধ মেটাতে গিয়ে
আজ আমি আমার পুতুলটার অঙ্গছেদন দেখি !
আহ,স্বামীজী,
আমার মুখে কতো হিংস্রতা,
বুকে সভ্যতার অহংকার,
চোখে মিথ্যে মায়া জল,
তবে যে তুমি একদিন বলেছিলে,
"ভারত পৃথিবীর সবচাইতে বড় বিদ্যাপীঠ ! "
আমার হাত কাঁপে,পা কাঁপে,
শুধু একটু সুখী হবো বলে,
কি ভয়ংকর এক জীবন দিচ্ছি ওদের,
কি ভয়ংকর !
ক্ষমা করিস না মা আমায়,
একদম না,
আমি অপেক্ষায় রইলাম,
মানুষে এই চুকচুক দুঃখ পালন শেষে তুই আমার সামনে,
তোর মুখ ভর্তি থুতু,
আমার চকমকে সুখী মুখটায় ছুঁড়ে দিবি মা,
ছুঁড়ে দিবি ....
গঙ্গা কি করে বইছে এই মাটিতে??????
                                           ০১/১২/২০১৭
[email protected]সৌগত রানা কবিয়াল