নতুন আলোয় রৌদ্রস্নান

নতুন আলোয় রৌদ্রস্নান
কবি
প্রকাশনী বাতিঘর
সম্পাদক বাতিঘর
প্রচ্ছদ শিল্পী ধ্রুব এষ
স্বত্ব ্লেখক
প্রথম প্রকাশ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
সর্বশেষ প্রকাশ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
সর্বশেষ সংস্করণ ১ম
বইটি কিনতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন

সংক্ষিপ্ত বর্ণনা

বইটিতে ৮০টি কবিতা স্থান পেয়েছে । সব শ্রেণীর পাথকদের কথা মাথায় রেখে কবিতায় ফুটে উঠেছে প্রেম-ভালবাসা,অনুরাগ, মিলন, সমাজ বাস্তবতা ও দ্রোহের কথা বলা হয়েছে । বইটি পাওয়া জাবে বাংলা একাডেমির বইমেলা ২০১৯।
স্বদেশ শৈলী(ষ্ট্ল ন্ং -৬৮, বাতিঘর ষ্টল ন্ং ১২১-১২২) ।এছাড়া রকমারি ডট কমে পাওয়া যাবে।

ভূমিকা

কবিতা বই নিয়ে কিছু কথা

ইংরেজ কবি ডিল্যান থমাস বলেছিলেন, কবিতা বাস্তবতার সঙ্গে নতুন সংযোজন নিয়ে আসে। কবিতার সংযোজনে পৃথিবী আর আগের মতো থাকে না। কবিতা জ্ঞান আর প্রতিবেশকে বদলে দেয়।
উদ্বৃতিটি খুব শক্তিশালী। মনোজগতের এক ভিন্ন ধাপের উচ্চারণ কবিতা হয়ে ওঠে। এ উচ্চারণে বাস্তবতার চিত্রকেও কবি উপস্থাপন করেন এক ভিন্ন ভাবালুতায়। সেখানে আর্তি থাকে, ব্যাকুলতা থাকে--থাকে অস্পর্শেয়র হাতছানি।
সুবীর কাস্মীর পেরেরা একজন সংবাদকর্মী। তাঁকে অন্ততঃ সেভাবেই জানি। দেশ থেকে বেশ দূরে তাঁর অবস্থান। আমরা যারা শেকড়ছেঁড়া মানুষ, নিত্যদিন নানা ব্যঞ্জনার ধ্বনিতে আপ্লুত হই--পেরেরা তাদের একজন। তাঁর কবিসত্তার এক পরিশীলিত উপস্থাপনা, ‘নতুন আলোয় রৌদ্রস্নান’। এখানে কবি পেরেরা ভাব আর বাস্তবের উত্তাপে অবগাহন করেছেন। করেছেন ভালোবাসা আর মমতার সঙ্গে।
কবিতা পাঠ, কবিতা শোনা আর কবিতায় প্রবেশ করার মাত্রাটি ভিন্ন ভিন্ন। বই আকারে প্রকাশের আগে ‘নতুন আলোয় রৌদ্রস্নান’ আমাকে ভাবাতুর করেছে। থমকে গিয়ে ফিরে পড়তে হয়েছে,

মনের আকাশে আজ
সোনালী দিনের আলোর ছটা
উচ্ছ্বসিত মনের গহীনে
বাসা বাঁধে বেঁচে থাকার অদম্য বাসনা;
দক্ষিণমুখী বারান্দায় নতুন আলোয়
আমি রৌদ্রস্নানে তৃপ্ত এক কবি।

বইয়ের প্রথম কবিতাটি শেষ হয়েছে এভাবেই। কবি সম্ভাবনার হাতছানি দিয়েছেন। অদম্য বাসনার কথাটি বিলেছেন, যা যে কোন পাঠকের মনোবাসনার উচ্চারণ হয়ে উঠেছে। মানব জীবনের অর্থপূর্ণ অবগাহনের ভাবাতুর উচ্চারণ এমনি করেই কবিতা হয়ে উঠেছে সুবীর কাস্মীর পেরেরার কাব্য গ্রন্থে। ‘অবিনশ্বর ভালোবাসা’র উচ্চারণে মনের আকুতির কথা তাঁর কাব্যে বিধৃত হয়েছে। প্রেম, প্রকৃতি সহ আমাদের নিত্য অবগাহনের মূর্ত-বিমূর্ত উপাদান নিয়ে ভাবের খেলা খেলেছেন কবি সুবীর কাস্মীর পেরেরা।
‘নতুন আলোয় রৌদ্রস্নান’ এর কাব্যগুণ নিয়ে কাব্য বোদ্ধারা কথা বলবেন। কবিতার সাধারণ পাঠক হিসেবে কবির এ কাব্য প্রয়াস উপভোগ করেছি। ফিরে পাঠ করতে গিয়ে কবিতার নতুন ব্যঞ্জনা ধরা পড়েছে ভিন্ন ভিন্ন কবিতায়। যেকোন মনোযোগী পাঠক এমনি করেই তাড়িত হবেন-- এ আমার বিশ্বাস। এডগার এলেন পো’র কথা ধার করেই যদি বলি, শব্দমালার ছান্দসিক প্রকাশই কবিতা হয়ে ওঠে।
সুবীর কাস্মীর পেরেরা’র কবিতায় এমন ছান্দসিক প্রকাশ ঘটেছে বেশ সামর্থের সঙ্গে। তাঁর উচ্চারণে এবং উপস্থাপনার প্রয়াসটি পাঠকের আনুকূল্য পাবে--এ আমার দৃঢ় বিশ্বাস।
#

ইব্রাহীম চৌধুরী
জানুয়ারী, ২০১৯
আবাসিক সম্পাদক, প্রথম আলো উত্তর আমেরিকা সংস্করণ

উৎসর্গ

উৎসর্গ

আমার বাবা আগষ্টিন পেরেরা. যার জন্য আজকের আমি।
এবং লেখালেখির ফটকের প্রবেশ দ্বারে যাদের উৎসাহ অনুপ্রেরণায় আজকের আমি,
চয়ন হিউবার্ট রিবেরু, চন্দন রবার্ট রিবেরু ও আমার পিসি মেবেল মার্থা গমেজ।

শেয়ার করুন: