দিঘল রাতের মিলন বাসর


ঠাকুর বিশ্বরাজ গোম্বমী


শারদীয়সূর্যের মিঠেল বিকেলে সন্ধ্যারাণীর
আঁচল ছুঁয়ে  কপালতলারনোদিটি
নির্বাক দাঁড়িয়ে
কে তরী বেয়ে যাও শরৎহাওয়ায়
কে তুমি না' ভিড়াতে চাও মন-জোস্নার ঘাটে।
স্বপ্বের পায়রা প্রেম-যমুনার তটে
উদাস হাওয়ায় আলিঙ্গনে
ডেকে যায় শব্দের নিঃশব্দ চিৎকারে
বকবকুম।
তুমি কি বুঝেছো সে নাবলা ভাষা,
যার সুর-লহরী সাঁঝ-তারার রাগে।
এখনো শেষ হয়নি দশমপদ্মবিলাসীর পূঁজা
কারণ
হারিয়ে গেছে একটি নীলপদ্ম
তাই-তো
সাগরবসনা পরে আজ একা
তোমার প্রেমের নাজ্কারেখা
হৃদয়-ভুমিতে
তুমি কি মরুহিরণ
আমার স্বপ্বের বালুকা-ভুমিতে,
উতপ্ত করে দিলে প্রেমার্কের আলোররেণু দিয়ে,
প্রেম-উপগ্রহটি
দিচ্ছে না চৈত্রীরাতের কাব্য-কুসুম আলোর তরঙ্গ,
তুমি-ই জানো
কবে পূর্ণ হবে চদ্র-লিপিয়ার
তার জোছ্নাতলা বসে
দু'জনে হবো এক
দিঘল রাতের মিলন বাসরে।