ছন্দ ও কবিতার পাঠ –২১ – ছন্দের শ্রেণিবিভাগ
---ড. সুজিতকুমার বিশ্বাস  
------------------------------------------------------------------------------
আজকের পাঠ উৎসর্গ করা হল - আসরের প্রিয়কবি সোমাদ্রি মহাশয়কে।        
------------------------------------------------------------------------------
আজকের বিষয়-  <পর্ব-৩, ভাগ-২১> ছন্দের শ্রেণিবিভাগ
------------------------------------------------------------------------------
ছন্দের উপাদানগুলির পরিচয় আমরা আগেই পেয়েছি। এসব উপাদানের প্রয়োগ কিন্তু সবসময় এক নিয়মে ঘটে না। ছন্দ ভেদে বিভিন্ন উপাদানের প্রয়োগে তারতম্য দেখা যায়। তাই উপাদানগুলির প্রয়োগ সম্পর্কে জানার আগে আমাদের ছন্দের শ্রেণিবিভাগ জানা প্রয়োজন। ছন্দতত্ত্ববিদগণ তিনটি ছন্দ রীতিকে মৌল ছন্দরীতি হিসাবে গণ্য করেছেন। সেই তিনটি ছন্দরীতি হল-
১. স্বরবৃত্ত ছন্দ
২. মাত্রাবৃত্ত ছন্দ এবং
৩. অক্ষরবৃত্ত ছন্দ।
প্রকৃতি বিচারে বাংলা ছন্দকে এমন ভাগেই সবাই ভাগ করেছেন। কিন্তু একই ছন্দরীতিকে ভিন্নভিন্ন ছান্দসিক ভিন্নভিন্ন নামে অভিহিত করেছেন। এসব বিষয়ে আমরা পরে বিস্তারিত ভাবে জেনে নেব।
এই তিনটি ছন্দরীতি ছাড়াও আধুনিক যুগের কাব্যচর্চায় আরও দুটি ছন্দরীতির বহুল ব্যবহার লক্ষ করা যায়। ছন্দরীতি দুটি হল-
৪) গদ্য ছন্দ
৫) মিশ্র ছন্দ।
আজ কোনো ছন্দের বিস্তারিত আলোচনায় যাচ্ছি না। নীচে বেশ কিছু একই ছন্দের কবিতা বা তার কিছু আংশ (এই আসর থেকে) পাঠ করার জন্য তুলে ধরলাম। যাতে আমাদের ছন্দ বুঝতে আমাদের সুবিধা হয়। পূজার ছুটির পর আবার আমরা এই আলোচনায় ফিরে আসব।


১) কবিতাঃ  এক কিশোরী  
কবিঃ স্বপন গায়েন
প্রকাশিত তারিখঃ ২৫/০৪/২০১৮


সবুজঘাসে কিশোরবেলার
   স্মৃতি অনেক লেখা
      স্বপ্ন সাজাই সবুজঘাসে
         ধূসর আলোয় দেখা।


বিবর্ণমুখ আজ অবেলায়
   পড়ছে ভীষণ মনে
      হলুদশাড়ি এক কিশোরী
         লাজুক আঁখি টানে।


নদীর বুকে পানসি চড়ে
    স্রোতে উজান বাওয়া
       হৃদয় মাঝে জায়গা নিলে
          না চাওয়াতেই পাওয়া।


সবুজ ঘাসে কুমারী শরীর
    জোছনা মাখা আলো
       কলঙ্ক দাগ চাঁদের কাছে
          ধার না করাই ভালো।


এক জীবনে স্বপ্ন গড়া
    হলুদশাড়ি প্রেম
       এক কিশোরীর মুখের ছবি
           হৃদয়ে রাখা ফ্রেম।।


২) কবিতাঃ  কালবোশেখি
কবিঃ মোঃহাদিসুর রহমান
প্রকাশিত তারিখঃ ২৭/০৪/২০১৮


গাছ গাছালি দুলছে হাওয়ায়
ঝড় বুঝি ঐ এলোরে।
দমকা হাওয়ায় চাঁষির ঘরের
চালটা খুলে নিলরে


মড় মড় মড় মড়াত করে
ভাংলো গাছের ডাল।
পাকা ধানে মৈ দিলো আজ
কাল বোশেখির কাল।


নামলো বাদল ঝড়ের সাথে
কালো আধার রাত।
কাল বোশেখি ঝড়ের মাঝে
পোহাইনাতো রাত।


আজকে বাদল কাল ভুলে তার
ঢালছে চোখের জল।
তার দুখেতে তাইতো চাঁষির
চোঁখটা যে টলমল।


পাকা ধানের মাঠটা যে তার
জলেতে ভরপুর।
কাল বোশেখি ছিনিয়ে নিল
চাঁষির গানের সুর।


৩) কবিতাঃ  নাগরিক দায়িত্ব-২
কবিঃ শ.ম. শহীদ
প্রকাশিত তারিখঃ ০৩/০৫/২০১৮


পাশের বাড়ির ঐ ছেলেটা
যাচ্ছে বখে!  যাক্ না!
নিত্য দিনই নেশা ভাঙ্গে
থাকছে ডুবে!  থাক্ না!


থাক না বলে এড়িয়ে গেলে
তাতে কী আর- চলবে?
দু'দিন পরে সমাজ নিয়ে-
লোকে কথা-  বলবে!


ঐ ছেলেটা আপনার-আমার
এই সমাজের  অংশ!
আপনি কী চান ওর কারণে
সমাজটা হোক- ধ্বংস?


ঠিক বলেছিস! সমাজটাকে
করতে হলে  রক্ষে
থাকতে হবেই ঐ ছেলেটার
ভালো করার- পক্ষে!


৪) কবিতাঃ  স্মৃতিটুকু থাক
কবিঃ মূলচাঁদ মাহাত  
প্রকাশিত তারিখঃ ০৪/০৫/২০১৮


মরা নদীর বান ডেকেছে খরা গেছে কেটে,
শষ্য শ্যামল ফসল যে আজ সেদিনের সেই মাঠে।
সময় কত গড়িয়ে গেছে নদীর ধারার মতো
যায়নি মুছে তবু আজো হৃদয়ের সব ক্ষত।
স্মৃতির পটে নিত্য ভাসে এক একটা দিন,
আজকে যা সব তার যে আছে আমার কাছে ঋণ।
তোমায় কত দিয়েছি গো আদর, প্রণয়, প্রীতি,
হৃদয় তলে সদাই জ্বলে আজও সে সব স্মৃতি।


৫) কবিতাঃ  জানতে ইচ্ছে করে
কবিঃ মোঃ আব্দুল কাদের
প্রকাশিত তারিখঃ ১১/০৫/২০১৮


আকাশ তুমি কিসের তরে
      কেন  এমন নীল,
কেন   এমন   উদার  তুমি
      উদার তব দিল?


সাগর কেন বিশাল তুমি
     বিশাল তব বুক,
নদীই কেন তোমার বুকে
   খোঁজে মিলন সুখ?


পাহাড়  তুমি  কঠিণ  এত
      তবুও কোন দুখে,
ঝরনা বহে  কোন কারণে
      তব পাষাণ বুকে?


মেঘকে বলি কোথায় যাও
     বাতাসে ভর করে,
কার বিরহে তোমার চোখে
     বাদল ধারা ঝরে?


৬) কবিতাঃ  হিমেল হাওয়া
কবিঃ শাজাহান কবীর শান্ত
প্রকাশিত তারিখঃ ২৫/১/২০১৮


যখন আমার আকাশ খানা
বিষন্ন লিকলিক,
মন করেছে হিমেল হাওয়া
অনেক খানি ঠিক।


মেঘের বাড়ি জমাট কালো
ছায়া সবুজ ঘাসে,
টুকরো করা হিম বাতাসে
জীবন খানা হাসে।


মুখ লুকিয়ে দূর্বা,গোলাপ
যখন থাকে পড়ে,
বুক কাঁপিয়ে দখিন বায়ু
তখন ওঠে নড়ে।


হিম বাতাসে ফুলকলিরা
পাপড়ী মেলে ফোটে,
পাখির ডাকে জুঁই-চামেলী
তখন হেসে ওঠে।


৭) কবিতাঃ  আয়রে সখি
কবিঃ নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন
প্রকাশিত তারিখঃ ১১/০৬/২০১৮


আয়রে সখি এই নিরালায় বাসবো তোকে ভালো,
আঁধার রাতে বদ্ধ ঘরের তুই-যে চাঁদের আলো।
রঙিন পানি লাগবে না আর তোকে কাছে পেলে,
রূপের নেশায় মাতাল হয়ে প্রেম দেবো আজ ঢেলে।


দিওয়ানা হবো তোর সোহাগি পরশ লাগলে গায়,
আর থাকিস না দূরে ও সখি রাত যে চলে যায়!
মনের যতো চাওয়া পাওয়া করবোরে আজ পূরণ,
ভুল গুলো সব মিলন সুখে ভাববো হচ্ছে শোধন।


৮) কবিতাঃ  আর কতদিন ঘটবে এমন
কবিঃ অজিতকুমার কর  
প্রকাশিত তারিখঃ ২০/০৬/২০১৮


জানত কি সে এমন ঘটতে পারে
ফিরবে নাকো আর কখনো বাড়ি
রইল আটক একলা একটা ঘরে
অমূল্য ধন পিশাচ নিল কাড়ি।


ছোট্টো বলে রেহাই দেয়নি ওরা
ক’দিন ধরে আঁচড়ে কামড়ে খেল
তাতেও ওদের সাধ মেটেনি মোটে
জীবন নিয়ে বোধ হয় তৃপ্তি পেল।


৯) কবিতাঃ  যাব না স্কুলে
কবিঃ সহিদুল হক  
প্রকাশিত তারিখঃ ২৫/০৬/২০১৮


বাবা আমি কাল থেকে আর যাবো না স্কুলে,
এইটুকু তো মেয়ে আমি, বলতে পারি খুলে?
মায়ের সাথে বলতে গেলাম, মা বলেছে 'মিছে'--
"মাস্টার মশাই বাবার মতো, নামতে পারে নীচে?"
আচ্ছা বাবা তুমিই বলো, 'শারীর শিক্ষা' মানে;
যোগ শেখাবে দূরের থেকে,খুব কাছে কেউ টানে?
'ভাল পারিস, আরও ভাল শিখতে যদি চাস
সবাই যখন চলে যাবে একটু থেকে যাস'--
পি টি স্যারের এমন কথায় থেকে যেতাম যেদিন,
কোলের উপর বসতে হতো,অন্য ব্যায়াম সেদিন।
মা বলেছে হয়তো আদর করতো অমন করে,
কিন্তু বাবা,আঙুলটা তার কেন অমন ঘোরে?
রাতে আমি চমকে উঠি, ভূত ধরেছে যেন!
তোমার আদর স্যারের আদর অন্যরকম কেন?


১০) কবিতাঃ  শেষ বিকালের সূর্য
কবিঃ রুনা লায়লা  
প্রকাশিত তারিখঃ ১০/০৭/২০১৮


আমি যদি যাই গো মরে
কেঁদো  না দরদী
আমায় শুধু মনেরেখ
বন্ধু নিরবধি ।


ভুল গুলো সব ক্ষমা কর
দু’হাত তুলে বলি
মমতারই বাঁধন ছেড়ে
যখন যাব চলি ।


১১) কবিতাঃ  বাউলবাদল  
কবিঃ পারমিতা৫৮
প্রকাশিত তারিখঃ ২৪/০৭/২০১৮


বেশ তো ছিল আজ সকাল,
আবার কেন বৃষ্টি এলো!
মনটা যেন উদাস হয়ে,
কান্না দিয়ে চোখ ভেজালো !


ক্লান্ত আঁখি কবিতা ছুঁয়ে,
পদ্ম পাতায় ঘুম দিলো!
স্বপ্ন সাজে অলখ সুখে,
চুমে মদির মন মথিলো!


ভাবনা আজ ডুব সাগরে,
কোথায় যেন কিই হারালো।
শূন্য পাতা রইলো পড়ে,
পাগল বাউল কাঁদছিলো।


১২) কবিতাঃ  রবিস্মরণ  
কবিঃ জয়শ্রী কর
প্রকাশিত তারিখঃ ০৭/০৮/২০১৮


আকাশ জুড়ে মেঘের মেলা
বেদনা অন্তরে
কবিগুরুর প্রয়াণ দিবস
স্মরণ ঘরে ঘরে।


কবির লেখা গানের কলি
মেঘের সাথে উড়ে
চিত্তমাঝে জাগায় সাড়া
বিশ্বভুবন জুড়ে।


আজ শ্রাবণে জগদবাসী
শ্রদ্ধা জানায় তাঁকে
শ্রাবণও তার অশ্রুধারা
কেমন করে ঢাকে।


***আজ এই পর্যন্ত। তবে চলবে। পরবর্তী পাঠ ৩০ অক্টোবর ২০১৮।
------------------------------------------------------------------------------
সূত্র/ ঋণস্বীকার- ১) বাংলা কবিতার আসর    
----------------------------------------------------------------------------
আসরের কবিদের কাছে আমার অনুরোধঃ এই আলোচিত পর্ব নিয়ে কোনো প্রশ্ন থাকলে নীচে সযত্নে উল্লেখ করুন। তাছাড়া কোনো গঠনমূলক মতামত থাকলে আন্তরিকভাবে জানাবেন।