বারে বারে আজও বিস্ময় মানি
হে কবি শিরোমণি।
আমাদের জন্যে রেখে গেছ এ কি
রত্ন ভান্ডার খনি।


সকলে মিলে শত বর্ষ ধরে খুঁড়ে
মিললো না তলদেশ।
না জানি কত টা অতলে রেখেছ
মনি মাণিক্য অশেষ।


হেঁটেছি এত কাল পেরিয়ে যাব
সুদীর্ঘ তোমার ছায়া।
ফুরায় না পথ, দু পাশে ছড়ানো
কথা আর সুরের মায়া।


চলতি পথে আগলে দাঁড়ায়
সম্মুখে অন্ধ গলি।
আলো দেখায় গীতবিতানের স্বর্নাক্ষর
তোমারই গীতাঞ্জলী।


দিয়েছ জ্ঞান, দিয়েছ দিশা, দিয়েছ প্রেম
কত ভালবাসা প্রীতি।
বাংলার আকাশ নক্ষত্রে ভরা
তুমি সেই অনন্ত নক্ষত্র বীথি।