সাগরের গর্জন মূখর সশব্দ তীরের কাছে
সুউচ্চ ঐ বাতিঘর
          ঠায় দাঁড়িয়ে আছে।
অধির আকুল ঢেউগুলো নাচে
         তার পাথুরে পায়ের কাছে।
বাতিঘর আলো দিয়ে যায়
বহুকাল ধরে আঁধার বন্দরে
      নিঃশঙ্ক নাবিক পথ খুঁজে পায়
নিজের ঘাটে নোঙর করে।


কোন কোন ঝড়ের রাতে,
আসে পাহাড়ের মত ঢেউ
          উত্তাল সমুদ্রে টেনে নিতে চায়
বাতিঘর দাঁড়িয়েই থাকে,
আর না থাকুক কেউ
      যুগ যুগ ধরে থাকে একই দৃঢ়তায়।


বাতিঘর খুঁজে পেলে
      তুমিও পাবে একদিন ঘাটের দেখা।
আঁধার নিরুদ্দেশে দিয়ে যায় যে
       এক ছটা উজ্জ্বল আলোর রেখা।