ঐ যে আমার দাদী আসছে তেরে
দাদার প্রাণের পাখি হয়েই রয়ে ছিলেন বটে।
দাদী আমার ভারী লাজুক অপরুপের ঐ''
ছিলেন গোলাকার রুপবতীরও একজনা।।


ঐ'রুপ গুণেই পাগল হয়ে দাদা আমার
পোন ডিমান্ডে বিয়া কইড়া.এনেছিলেন ঘরে!
দাদা জানের অন্ধকার জীবনটি আলোকিতের তরে'
তাই তো করেছেন সংসার একান্তই দু'জন দু'জনাতে।।


লাজুক দাদীর গোড়ি গোড়ি মুখ-খানীরই
হরিণী টানাটানা চোখে সরু নলক ও ঠোঁটের
স্নিগ্ধ ভরা মুখ-মন্ডলের আঁড়ালের চমৎকার
খুব সুন্দর দন্ত বিজড়িত হাসী-মাখা দন্ত শোভা।।


কি যে ভালো লেগেছে দাদী জান তোমায়!
তোমার স্নেহের কাঙ্গাল রয়েছিলাম একান্তই আপনে;
আজ নেই তুমি! চলে গেছো আমাকে ছেড়ে!
কত স্মৃতিই না রেখে গেছো স্নেহ মাখা আঁচলেতে।।


মনে পড়ে সব সময়ই তোমার আদর-স্নেহের
কতশত স্মৃতির আনন্দ-বিনোদনের ঐ'মনের কথা।
ভুলতে পারিনি আজও শুধুই মনে পড়ে তুমি নেই'
ঐ'বুঝি দাদী আমার ডাকছে নামটি ধরে!!


দাদা-ভাই আমার কোথায় গেলো রে এসো যাই!
বেড়ায়ে আসি ঐ'পাড়া আলীর মায়ের বাড়ি হতে।
কি যে আপন মনের একান্তই দরদ মাখা স্নেহত্বে
এমনেতেই স্নৃতি রেখে গেছেন লাজুক দাদী মমতা
ভরে আপন হতে আপনার্থে মায়ার চাঁদরে জড়ায়ে।।
===×××===
===×××===
বাণী: পরিবারের সদস‍্যদের মধ‍্যে একটি শিশুর জন‍্য দাদীই একমাত্র পরশ পাথরের আপন ও নিরাপদ কোল বলতে (নাতি-নাতনীদের) আসর ঘর। এতো আপন আর অন‍্য কোন কোল হতে পারে না।।