জ্বলছে আগুন জগৎজুড়ে– দাউদাউ, দাউদাউ,
চারিদিকে আহাজারি– হাউমাউ, হাউমাউ।
খ্রিষ্টান মরে, হিন্দু মরে, মরছে মুসলমান!
ভাবি না কেউ, মানুষ মোরা– সকলে এক সমান।


প্রতিযোগিতায় লড়ছি মোরা, কার কত অস্ত্র!
শক্তি বাড়িয়ে কে করবে কাকে ভীত-সন্ত্রস্ত।
মানুষ মারতে বানাতে পারে, কে কত কামান,
ভুলে গেছি, মানুষ মোরা– সকলে এক সমান।


রাহুর দশায় বাহুর বড়াই, কার হাত কত প্রশস্ত,
কাকে বানাবো দাবার গুটি, কে হবে কার দ্বারস্থ।
কার চেয়ে কে শ্রেষ্ঠ অতি, ভাবনা-পাথরে শাণ!
বুঝিনা কেউ, মানুষ মোরা– সকলে এক সমান।


ধর্ম দোহাইয়ে চেতন হারাই, রক্ত গঙ্গায় স্বর্গ খুঁজি,
ক্ষমতার মোহে অবচেতন, পুস্তকেই সব রুটিরুজি।
বড়ত্বের দাপটে সাঁতরে বেড়াই, গাই বৈষম্যের গান!
সুর নাই কণ্ঠ জুড়ে, মানুষ মোরা– সকলে এক সমান।


পবিত্র বীণায় বীভৎস সুর, অন্যায় গড়ে সভ্যতা;
মারার ফাঁদে শান্তি খুঁজি, এ কেমন ধৃষ্টতা?
শ্বাপদ হয়ে দংশী মানুষ, নাই ভালবাসার তান!
লেখায় নাই, মানুষ মোরা– সকলে এক সমান।


কাঁদি সবাই জাত-ভাইর মরণে, ভ্রান্ত চোখের জল,
মতের অমিল হলেই ত্রিশূল-তলোয়ার, হত্যা-কতল।
”সাফ করে দে সব অধার্মিক, মুরতাদ-নাফারমান!”
দেখি না চেয়ে, মানুষ মোরা- সকলে এক সমান।


চশমা চোখে তকমা লাগাই, তুই মুশরিক-মুনাফিক,
দূষিত বেইমান, জারজ বাচ্চা, হিন্দু-বৌদ্ধ-শিখ!
আমিই হলাম উত্তম অতি, তোরা সকল কীট-প্রাণ,
পুণ্য মনে বলিনা, মানুষ মোরা– সকলে এক সমান।


কোন নবি সত্য অতি, কোন অবতার নিষ্পাপ শিশু,
কৃষ্ণ-বৌদ্ধ-রাম-রামায়ণ, না কি মুহাম্মদ-মুসা-যিশু?
কোন স্রষ্টার সৃষ্ট মোরা, আল্লাহ-ঈশ্বর-গড-ভগবান–
মানি না, যে গড়ুক মানুষ মোরা– সকলে এক সমান।


আমার ইবাদত সার্বজনীন, আজান অথবা উলুধ্বনি,
আমার প্রার্থনালয়ে আছে স্রষ্টার তাজা অনুগ্রহ-খনি।
প্রমাণ করি ভাইকে মেরে, কার আছে খাঁটি ইমান!
অথচ, সকল ধর্মেই মানুষ মোরা– সকলে এক সমান।


মানুষে মানুষে টিকে থাকার দ্বন্দ্ব, দু'দিনের দুনিয়ায়!
বুদ্ধির লড়াইয়ে সিংহ গর্জন, শক্তিহীন দুর্বল কায়।
ভদ্রতার মোড়কে সাধু সাজি, অন্তর ভরা ভান—
জ্ঞান-বিচারে নাই, মানুষ মোরা– সকলে এক সমান।


এক জমিনে কাঁটাতারে বিভেদ, একই অঙ্গ-প্রতঙ্গে;
ভাই হল শত্রু, লাল রক্ত ভাগ হল– কৃষ্ণ-শ্বেতাঙ্গে।
দৌড়ে খুঁজি হেথায়-সেথায়, চিলে নিয়েছে যে কান,
খুঁজি না কেউ, মানুষ মোরা– সকলে এক সমান।


কোরান-বেদ-বাইবেল পড়ে হচ্ছি অমানুষ, সবে;
কেতাবে-কেতাবে যুদ্ধ কেন, কেতাব কার জন্য তবে?
লড়ি কেন, মরি কেন, কীসের তরে হচ্ছি মহান?
উত্তর খুঁজে দেখ, মানুষ মোরা– সকলে এক সমান।


কত অবতার, কত পয়গম্বর আসলেন বিলাতে শান্তি,
রয়ে গেল যতসব ফেতনা-ফাসাদ, অন্ধ-কালা-ভ্রান্তি।
ঊর্ধ্বালয়ে সত্য স্রষ্টা, সে এক ঐন্দ্রজালিক মহিয়ান!
গড়েছেন মানুষ নিজহাতে, ধর্মে-বর্ণে সকলেই সমান।