কাল রাত্তিরে খবর এলো
আতর মিয়া চইলা গেলো।
এক সময় যে ডুগডুগিতে ;
গাঁয়ের মেলায় কিম্বা পথে
বায়োস্কপে মন ভরাতো।
চইলা গেলো চইলা গেলো
সব ছাইড়া চইলা গেলো।
দারুন কষ্টে পাঁজর ভাইঙ্গা
চোখের কোনে জল জমালো।


আহাঃ!কি সুন্দর দেখা গেলো
সুন্দরীদের মেলা হলো।
জরিনারা অর্থালোভে পাশ্চাত্যর নোংরামিতে
লজ্জা খেলো র্পদা গেলো
বেশ্যালয়ের খোরাক হলো।


আহাঃ! কি চমৎকার দেখা গেলো
আরও কিছু রইয়া গেলো।
ভালোবাসার রঙ্গমঞ্চে
মেকি হাসির বাহার আছে।
মানবতা চইলা গেছে
মিষ্টি কথার বুলি আছে
শুনতে খুবই বাহার আছে।


আহাঃ!কি চমৎকার দেখা গেছে
আপন রাজা সামনে আছে।
সফলতার ঝুড়ি আছে।
তেলবাজদের তেল আছে
আইন আছে অস্র আছে
মানুষ মারার কৌশল আছে।
রক্ত ঝরাও মানুষ মারো
কুকুর জিহ্বা লম্বা করো!
শক্ত করে আসন গারো।


আহাঃ!কি চমৎকার দেখা গেলো
ডানে বামে নজর রাখো।
আগুন জ্বালো!
আগুন জ্বালো!
মনের দ্রোহে জল ঢালো।
চুপটি করে ঘরে থাকো।
জ্বলুক আগুন!
জ্বলুক আগুন!
মরুক মানুষ পথে ঘাটে
পা ভিজুক তোর চোখের জলে।


আহাঃ কি চমৎকার দেখা গেছে!
দাদা বাবুর নজর আছে।
ধর্মের উপর ধনু আছে
জুলুমবাজদের জুলুম আছে
আহাঃ! কি সুন্দর দেখা গেছে।
কুকুর শকুন নগ্ন নাচে
মুসলিম মরে স্বর্প বীষে।


তারপরে’তে লক্ষ্য করেন
চোখের কোনে রক্ত ঝরে।
রক্ত জমে মনের কোনে
স্বপ্ন আঁকে জমাট ক্ষোভে।


তারপরে’তে অবশেষে ;
কি চমৎকার দেখা গেলো।
তারা জোত্যি চইলা গেলো
অন্ধকার পইড়া রইলো।


ঘেন্না হলো ঘেন্না হলো
নিজের প্রতি ঘেন্না হলো!
তবু শুকর নোংরা মুখে
ভালোবাসার কথা বলে।


যাচ্ছে সময় যাচ্ছে জীবন
এমন করেই বায়স্কোপে।
----------------