উষসীর রাঙা সাঁঝে গোধূলি বেলায়,
ফুটিল সন্ধ্যা-মালতি তোমার আঙিনায়।
উদিল সন্ধ্যাতারা গগনে,
সেঁজুতি প্রভায় রাঙা ভুবনে-
রাঙিলে তুমি, সেথা সেই উষসীর রাঙা সাঁঝে
মেহেদী রঞ্জিত বধূ বেশে রক্তিম লাজে।
আজি বাজে বেনুকা নাচে সবে, -
তোমার  বিদায়ী আনন্দ ঘন উৎসবে।
চির সাথী! চির বিদায় মুহূর্তে,
ঝরে লুঠে মোর প্রেমের মুকুল মলিন ধূলিতে।
সেই ঝরা কুসুমে রচি'ও তব বাসর-শয়ন,
যে ছিল চির অচেনা আজি হবে চিরচেনা চির আপন।
সেই আপনার বুকে রাখি' মাথা হে বিদায়ীনি!
মধু-বাসরে মধুর আলাপনে জাগিয়া রজনী।
সুখ স্পর্শে  আনন্দে হর্ষে উঠিবে মেতে-
ঐ নতুনের সাথে।


সাথী সেই ক্ষনে!
জানি ছিঁড়িবে প্রেম-রাখি মোর টুটিবে -প্রেম-বন্ধন,
মুছিবে যে ছবি মোর তব বুকে ছিলো অঙ্কন।
মোর দেহ রবে মোড়ানো ধূসর কাফনে,
বিরহের অনন্ত বেদনার কফিনে।


মনে কি পড়ে? যখন আমি বিভোর নিদ্রায়,
ভাঙালে মোর ঘুম খেলিতে খেলা হায় -
রে নির্মম প্রিয়া!
কি গভীর প্রণয়-খেলা গো জোড়ে ছিলে-
মোর সনে, আজ আধা খেলে আধা পেলে
অসমাপ্ত রেখে।ও-শত জনমের অনুরাগিনী
আমার নিষ্ঠুর-পাষাণ!
আজ আধা গেয়ে আধা ভুলে শেষ হ'লো না পুরো গান।  
নিলে চির বিদায় ওগো জন্ম-জন্মান্তরের সাথী
আজ বেলা শেষে অবেলায় বুঝিলাম মিছে মোর আরতি।
যে দেবতারে অর্চনা দিলাম বসিয়ে হৃদ-মন্দিরে,
বক্ষ করিল দীর্ণবিদীর্ণ বিরহ-বিষাক্ত তীরে।


(সংক্ষিপ্ত)