অবশেষে
#######
ও অমলিন চাঁদ একমুঠো জ্যোস্না দিয়ে যাও এই মলিন সংসারে,
দিয়ে যাও একমুঠো আলো আর হাসি ছেঁড়া কালো,ঘূর্ণি এলোমেলো আঁধারে।।


একটু মেলো আঁখি দেখো গভীর অরণ্যে,
যে নিমগাছ প্রতিথ করেছে তার মূল,
নুড়ি,পাথর ভরা উর্বর মাটিতে,
যে ধীবর,নাবিক পথ হারিয়েছে অতল সমুদ্রের গভীরে।।
ও অমলিন চাঁদ একটু ছড়িয়ে দাও তোমার স্নিগ্ধ আলো,
ফিরে আসুক তারা কিনারে ।।


দেখ এক বালিকা দুহাত ভরে নেয় মুঠো মুঠো বালি,
কাজল কালো দুচোখ চিকচিক জল,
বয়ে যায় চিকন দুগাল দিয়ে টলমল ।
যেখানে তার বিষণ্ন মন ,ক্লান্ত শরীর পড়ে রয়,
অন্ধকারে অজানা স্বপ্নের সন্ধানে, সন্ধানি নয়নে জেগে জেগে রাত ভোর হয় ।


যে পাগল হওয়ায় উতল মনের ব্যাকুল স্বপ্ন ,টুকরো টুকরো হয়ে অজানা পথে  বিলীন হলো ।
কোনো শক্ত মনভূমি পাওয়ার আগে,আগামী মলিন হয়ে গেল।
ও নিষ্ঠুর চাঁদ দাওনা একটু আলো ভোরাই সুরের আগে ।


একটু আলো-ফিরেপাক
স্বপ্ন পুরনের ভাষা,বেঁচে
থাকার আশা,উড়ে যাওয়ার সোনালী,স্বপ্ন রঙীন পাখা ।।