খেলা ঘর
=====================


আয় কে কে যাবি আয়,
ধরণীর বুকে ,ধুলো বলি মেখে কেটেছে সাঁঝ সকাল,
ময়ূরপংখী তরী ফিরছে আবার কুলায়,
ধর বৈতরনীর বৈঠা-হাল,
শুধু বেলা বয়ে যায়,আয় কে কে যাবি আয় ।।


গোধূলি বেলা, সূর্য্য ডুবে , বালিকা বধূ,দ্বীপদেয় তুলসী মূলে,
সাঙ্গ হয়েছে মোর এবার খেলা,
আয় কে কে যাবি আয় ,এসেছে মোর  ময়ূর পংখী ভেলা ।।


পর্ন কুটিরে কাজ আরো বাকি  আজ,স্বপ্ন অনেক চোখে ।
শিশিরে ধৌত করে হয় নি ফেলা পা, সবুজ ঘাসের বুকে।।


এক তারার ঐ টানে ,বাউল গানের সুরে,
ভাটিয়ালি মন আজ পাগল পারা ।
কেউ বা গেছে ফিরে,কেউ বা সঙ্গ হারা কেউ বা অপেক্ষায় ধ্রুবতারা।
ময়ূরপংখী তরী আবার এনেছি কুলায়,
আয় কে কে যাবি যায় ।।


পাখির কলতানে, কুহু কূজনে, শব্দ ভেদীবানে, অনেক হয়েছে রচনা, রেখেছিস অনেক সাক্ষ,
বায়ু সমুদ্রে, নিয়তির খেলায় রইলো কিছু মরুভূমির গোবাক্ষ ।


সময় নেই আর,দড়ি ধরে হ্যাচকা মার,মার টান মার ,
যা কিছু আছে সবই আমার ,আমার ।
দিব নাই কিছু, সঞ্চয় করিবার বাকি আছে আরো,
প্রাণপনে  জড়ো করো ,আরো জড়ো করো।


দাঁড়াও পথিক বর তিষ্ঠ ক্ষনকাল,
পদাতিক,গজ, বিজয় রথের হুঙ্কার,মরীচিকা অহঙ্কারের হয়েছে অন্তিম সময়, সাঙ্গ করো খেলা,


ময়ূরপঙ্ক্ষী তরী আবার এনেছি কুলায় ।
দেরি নয়, আর দেরি নয়, যেতে হবে ,
এখুনি এইবেলা ।।