পুরুষ যখন চল্লিশ বছরে করে প্রবেশ,
তার কামনা, বাসনা হয়ে যায় শেষ।
তার চুল, দাড়ি, গোঁফে ধরে পাক;
চব্বিশ বছরের মেয়ে দেখলে হয় অবাক।
উনচল্লিশটি বসন্ত পার করে বয়সের চাকা,
সে দাদা থেকে হয়ে ওঠে কাকা।
বিদায়ী যৌবন আর আসন্ন বার্ধক্যের সন্ধিক্ষণ,
সমস্ত আকর্ষণ হারিয়ে ফেলে তার জীবন।
না পড়তে পারে সাদাকালো না রঙিন,
তার অবস্থা হয়ে ওঠে একেবারে সঙ্গিন।
তার সঙ্গে ভালোভাবে কথা বলে না কেহ,
সঙ্গী হয় উচ্চ রক্তচাপ আর মধুমেহ।
তার সব প্রিয় খাবারগুলি করে কাটছাঁট,
ডাক্তার তাকে ধরিয়ে দেয় ডায়েট চার্ট।
সে যেন ঘোড়ার দৌড়ের বাতিল ঘোড়া,
সংসারের ভার বয়ে হয়ে যায় খোঁড়া।
সে যেন চল্লিশ বছর বয়সি ঈগল,
থাবা অথর্ব, ঠোঁট বাঁকা, পাখা দুর্বল।
তার খবরও তখন ঠিকমতো কেউ রাখেনা,
স্ত্রীও আগের মতো আর প্রেমিকা থাকেনা।
সবার চক্ষুশূল সে যেন আমড়া কাঠ,
তার পোড়া কপালে জুটে সিঙ্গেল খাট।