অদেখা সবকিছুই না জানি যেন কত সুন্দর !
প্রশংসা শুনে শুনে ব্যাকুল হয় এই অন্তর...।  
কল্পনার রঙ্গেও দেখি তা কতনা মনোহর  !
তা পেলে মনে হয় সুখে থাকব জীবনভর ।
তাই তারে পাবার আশে আর, সইছে না যে তর ।


বহুত কিছুর বিনিময়ে তারে পাবার পর...
ঘেঁটে ঘুঁটে দেখলাম যখন তার বাহির ভিতর,
দুচোখ বেয়ে নেমে এলো অশ্রু দরদর.........
এটা পাবার জন্যই কি আপনকে করলাম পর ?
এটার জন্যই কি নরক বানিয়েছিলাম নিজ সুখের ঘর ?


আবেগে অন্ধ হয়ে, সৃজন করেছি তবে দুঃখের মহাসাগর !
স্বজন সমাজ ছেড়ে আগলে ধরেছি শুধু ধুধু বালুচর........!
কি করে এ থেকে পাবো যে মুক্তি; পাইনা কোন বুদ্ধি মন্তর,  
হায়রে বাসনা তুমি কেন এত মনোহর..........?  
কল্পনায় দেখা স্বর্ণস্তূপ, বাস্তবে দেখি তা; এক গাঁদা খড় !


তাই বলি, শোন হে সবাই - আছ যত নারী আর নর ......
শুধু একবার ভুল করে, কাঁদিও না সারাটা জীবন ভর...।
শুনাকথায় কান না দিয়ে, ভালো করে নাও তার খোঁজ-খবর
নইলে,  সব আশার হবে গুড়েবালি; হবে গনকবর.........।  


স্বীয় জীবন সাজাতে যে হতেও হয় যে কিছুটা স্বার্থপর !
কেননা, বেশী নিঃস্বার্থবাদীদের জীবনে আসে দুঃখের ঝড়...
সব উজারকারীরা যদিও পরকালে পাবে হয়তো উত্তম বর
কিন্তু, ইহকালে যে স্বার্থন্বেষীদেরই বেশী কদর !
তাই,অতটা আবেগ তাড়িত না হয়ে..........
                সময়মত জেনেবুঝে কেটে পরাই হিতকর.......  
                      
রচনাকালঃ-মঙ্গলবার ১৪/০৭/১৫ ঢাকা ।