কোথাও কোন সমস্যা নেই। সব ঠিকঠাক চলছে।
হরিদাসের জুতাকালির কাজ,
ভ্যান হাবলুর খেপ কম পাওয়া কালো মুখ,
আমাদের আনন্দধারা কালভার্টের ওপর
অন্ধকারে পুলিশের উড়াধুরা চেক ও সুযোগ পেলে ডট ডট,
ক্রিকেট খেলায় পাড়া-মহল্লায় জুয়া,
টিটি পাড়ায় লুকিয়ে গাজা বিক্রি, এসব চলছে।

টেলিভেশনে দেশ সিঙ্গাপুরের দিকে সত্যি সত্যিই
রওয়ানা হয়েছে মর্মে কিড়া-কছম কাটা প্রতিবেদন চলছে।
ইউটিউবে খিস্তি খেউড়,
রাজার গতি উল্টে ফেলা বিপ্লবীর আবির্ভাব,
কারো কারো কৃত্রিম বাঁধানো দাঁতে যুদ্ধের খিঁচুনি!
নেতারা মিথ্যাকে সত্যে কনভার্ট করে পাবলিককে গেলানো,
বুদ্ধিজীবিরা দেশের বেলায় বধির হলেও
ইথিওপিয়ার অনাহারী মানুষের চিৎকার ঠিকই শুনতে পান,
সেই বিনিময়ে গচ্ছিত মাথাটি ভালো দামে বিক্রি করার সুযোগ;
টাকা পাচারের খবর, কারো থ্যাঁতলানো হাসি,
আশানুরূপ রেমিটেন্ট না আসায় হুন্ডির গুষ্টি উদ্ধার,
সরকারের পক্ষে লেখার জন্য পত্রিকায় কলামিষ্ট নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি,
সকালে হালকা বৃষ্টি হওয়ার কারণে
সালে মুদির দোকানে ডিমের হালি তিন টাকা বেড়ে যাওয়া অব্যাহত আছে।


মিছিলে তাবিত আউয়ালকে পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠানো,
গুলিস্তান ফুট থেকে গুড্ডুর লাইনের তোলা উঠানোর পেরেশানি,
নগর প্লাজায় পজেটিভ ও চায়না লিংক ব্র্যাণ্ডের
আসন্ন পূজায় আশানুরূপ বিক্রি না হওয়ার আফসোস,
তুরাগ গাড়িতে যাত্রী-কালেকটরের ভাড়া নিয়ে ধাক্কাধাক্কি,
জানালা দিয়ে যাত্রীর মোবাইল ছিনতাই করে খিছা-লড়,
কাঁচা বাদাম, কালা কালা সাদা সাদা গান এবং
রেলওয়ে এসি মসজিদের বারোমাসি খয়রাত তোলার মাইক বাজছেই।


বিয়ে-খাৎনার অনুষ্ঠানে সেন্টারগুলিতে ভিড়,
স্কুলের চেয়ে কোচিংয়ের যৌক্তিকতা নিয়ে তর্ক,
হাইওয়েতে চুরি-ডাকাতি, সড়কে বনি আদমের বেঘোরে মরা,
পাড়া-মহল্লায় নেতাদের গড়ে তোলা উঠতি মাস্তানদের বাইকের দৌড়াত্ম,
সমানে উন্নয়ন প্রজেক্ট থেকে টাকা লোপাট,
গুম হওয়া স্বজনের অনন্তকালের অপেক্ষা অব্যাহত আছে।

সব ঠিকঠাক মতোই চলছে।
সবাই বহালতবিয়তেই আছে।
কিন্তু সবার মুখে আফসোস! দেশটার অবস্থা ভালো নেই!
কখন যে কি হয় আল্লায় জানে!


সবাই সবকিছু ঠিকঠাক মতোই জানে,
শুধু দেশের ভবিষ্যতটা আল্লায় জানে!
কারণ দেশের বিষয়ে আল্লারে ছাড়া
কারোই কোন দায় নেই!