পীঠস্থানের জ্যোতির্ময়ে চুপ করে যাই ,
চুপ করে যাই অগ্নি-গিরি , খেয়াল-পরী ;
তিরস্কারে জ্বলে জীবন , চাঁদের আলো ,
দু-চোখ জ্যাঠা ,  চীনামাটির রূপ দেখাল ।

উপযুক্ত তৃপ্তি আশায় জীবন-ছিলা ,
জটিল , তোমার ব্যতিরেকে ন্যস্ত বরণ ;
সাধারণের হিসাবি-মাস যাত্রীবাহী ,
তৃণভোজীর ব্যঞ্জনাতে আকাশ-মারণ ।

ঘ্রাণেন্দ্রিয় ,টাট্টুঘোড়া - আলোড়নে
স্মৃতির কণা নাকাল করে মুষ্টিমেয় ;
প্রাকৃত সব উপায় যখন সন্তোষী-মা -
জিব-জগতই - আশার ছলে দাবার-স্নেহ ।

বিপদ বুঝে অন্ধকারের নিদ্রা আসে
বিকট আকার যোগ-ত্রয়ের আস্তাবলে ;
অর্পিত সব অশ্বারোহী ভরসা জোগান ,
যদিও তখন গভীর রাতে ব্যাঙ ডাকে না ।

নিঃশব্দ - অশোধিত , উঁচুদরের -
ইস্তাহারের আবেশ লেগে অবাঞ্ছিত ;
উপায় কেবল পাতলা খরচ প্রবৃত্তিতে
যদিও তখন অশ্বারোহীর মান থাকে না ।

প্রাণ থাকে না দাবার স্নেহ অতিক্রমণ ,
দিক-চালনা নাকাল করে বুনো-আঁধার ;
তখন 'তারা'-তৃপ্তি সাধন ব্যঞ্জনাতে
জীবের সাথে চীনামাটির ভাব থাকে না ।