একদিন তুমি শুধুই আমার বাবা ছিলে
আজ আমিও তোমার বাবার মতোন
                      তাই মাঝেমধ্যে রাগি –
এ তো পৃত্বিস্নেহ – একদিন তুমিও এমন রেগে যেতে
তারপর স্নেহ ঢেলে ঢেলে মুছে ফেলতে সব অভিমান।
পৃথিবী প্রতিশোধের সুফলা জমিন!
মনে আছে বাবা – সেইদিন; যেদিন মা আর আমি
প্রবল জ্বরের ঘোরে শুধু ছটফট করেছিলাম –
তুমি আমাকে বুকের মধ্যে চেপে মেঝের সমস্ত জমি
চষে চষে রুয়েছিলে স্নেহের সরস বীজ –
                          রাত্রির সমস্ত আঁধার আজও দোলায় সেই ফসল।
এমন যে কত দিন গেছে কৈশোরে শৈশবে
                         হাসি-দুঃখের পালাবদলে –
সূর্যের মতোন এখনো সতেজ – ঈদ-পূজা-আনন্দের আয়োজনে
নতুন নতুন শার্ট-প্যান্ট-ঘড়ি-বাঁশি-জুতো আরো কত যে কী!
ফুটাতে আমার মুখে হাসি; আমার সে যত প্রয়োজন
রক্ত ঝরায়ে ঘামের দামে তুমি করতে আয়োজন।
                          আজ তুমি বাবা শিশুর মতোন
তোমার রক্তের ঘামের দামের সেই নতুন পেরন
একগাল হাসি ফুটাতে - আজ আমার এ হৃদয়ের সমস্ত বাসনা
তোমর পৃত্বিস্নেহের দরিয়ায় আনন্দঢেউ ফলাতে –
পৃথিবীর ঋণ পৃীথবীতে হোক শোধ!
তুমি পিতা – আমি স্নেহের নন্দিত ধন
সুরক্ষিত বাহুডোর তোমার আমার নিশ্চিত আবাসন
পিতার পুত্র পুত্রের পিতা – সময়ের আয়োজনে
পালাবদল। নন্দিত পৃথিবীর মহা প্রয়োজন।