তুমি ঐ নীল আকাশ
রংধনুর সাত রং,
তুমি দক্ষিণা বাতাস
পদ্য লেখার ঢং।
তুমি ঐ বাদলা দিনে
রিমঝিম বৃষ্টির ছোয়া,
তুমি কাব্যের টানে
মনে আসা-যাওয়া।


তুমি ঐ রাখালের বাঁশি
সবুজ মাঠের প্রকৃতি,
তুমি নববধুর হাসি
শিল্পীর গাওয়া গীতি।
তুমি ঐ কালো কেশ
চুড়ির রিনিঝিনি শব্দ,
তুমি হওনা কভু নিঃশেষ
শত হাজার অব্দ।


তুমি ঐ বসন্তের শিমুল
যুবক-যুবতীর মন,
তুমি রঙিন ফুটন্ত ফুল
অপেক্ষা করা ক্ষণ।
তুমি ঐ লাস্যময়ী নারী
রাঙা ঠোঁটের হাসি,
তুমি কুচিতে কালো শাড়ী
পূর্ণিমা রাতের শশী।


তুমি ঐ কাশফুলের ছোয়া
সবুজ ঘাসের শিশির,
তুমি ফাল্গুনী হাওয়া
সুবহে সাদিকের মিহির।
তুমি ঐ কাব্য জগতে
হয়ে কল্পনার রাণী,
পাগল মনে দিনে রাতে
করো সৃষ্টি অমর বাণী।