সেই ছেলেটাই খেলতো মাঠে পায়ের ছোঁয়া ফুটবলে;
সেই ছেলেটাই লোক হয়ে যে চাকরি খুঁজতো চটকলে।
পায়ের জাদু চটকে গিয়ে আটকে গেছে পেটের ভাত;
পঙ্গপালের ক্ষেতের ওপর পঙ্গু ডানায় গজানো হাত।


সেই ছেলেটাই পড়তে যেত সবার মতো ইসকুলে;
সেই ছেলেটাই চাইতো জানতে সাস্থ্যসাথী প্রকল্প।
বাড়ছে বয়স, বাড়ছে খিদে, হাতে সময় খুব অল্প;
হাঁটতে হাঁটতে পৌঁছে গেছে হট্টগোলের জঙ্গলে।


সেই ছেলেটাই ছোট্ট যখন স্বপ্ন আঁকতো খাতার পর;
সেই ছেলেটাই বনের ভিটেয় নিচ্ছে বোমার প্রশিক্ষণ।
বিস্ফোরণে কেমন করে ফাটাতে হয় কুটির ঘর;
মুছছে স্বপ্ন হাজার শিশুর আঁকছে তাদের মরণক্ষণ।


সেই ছেলেটাই বদলে যেতো একটা বদলি কাজ পেলে;
সেই ছেলেটাই বুনতো স্বপ্ন প্রিয়ার প্রেমের ঘর করে।
দেখতো স্বপ্ন বাইক পিছে ইসকুলে যায় তার সে ছেলে;
যার খাতায় ভরা নতুন ছবি, নতুন স্বপ্ন যার অন্তরে।