নদীর উপর সাঁকো
আমার সঙ্গে তুমি থাকো

রাস্তাসব টেরাবাঁকা
জীবন মরণ সঙ্গে থাকা

ঝলসে দিন দুপুর
আমার গানে বাঁধো সুর

নোনতা মিঠে প্রেম
যুগল ছবি বাঁধা ফ্রেম  

যুগের মতো পাহাড়
দু’চোখ ভরে দেখার বাহার

যাবো কার শরণে
ডুবলে  সূর্য  কোন গগনে

রোজ বাঁচার কথায়
শরীর পোড়ায় কেন অযথায়  

একলা ভিড়ের দলে
সন্ধ্যে সকাল হামলা চলে

কিসের  ঝুট ঝামেলা
ঝড়ের রাতে গানের খেলা

বুকের ভেতর পাতাল
সব প্রেমিক নাকি মাতাল

ভুতের  কি ছদ্দনাম
সর্বনাশী চাঁদ কালো জাম

সহজ মাখা মুখ
রাজনীতি  কি পেটের অসুখ

সকাল বেলার বাজার
টাটকা তাজা সব্জির বাহার

বর্তমান যদি  ফুর্তি
ধুলোয় থাক  জীবন কুর্তি

আগুনের রঙ মশালে
মানুষ চেনো মানুষের পালে

পাড়ার চায়ের দোকান
বুড়োদের বেঁচে থাকার প্রাণ

পাড়ার চায়ের দোকান
হুল্লোড়বাজি মৌজ মস্তির থান

কাটিয়ে জিভের দোষ
বাবা মায়ের সুবোধ বালক হোস

বিপদ আসে আসুক
দেশের সংস্কৃতি রক্তমাংসে মাখুক

ক্ষিদের উনুন জ্বালাই
বেঁচে মরেও যেন জীবন সারাই

খিদের মুখে আদর
কার বুকের বোতাম খোলা পাঁজর।

ঘরের শোভা ঘরে
বৃষ্টির  দিনে কাঁচের শার্সি ধরে।

কিসে খুঁজিস শান্তি
জাপটে গা চরম ঘোরের ক্লান্তি।  

উদোম আকাশি বৃষ্টি
বাঁচতে হবে জাপটে বুকে সৃষ্টি।

আঙুল ছাড়া জাদু
মা যখন দিদা বাবা যখন দাদু।

লক্ষ্মীসোনা কলেজ কন্যা
পড়াশোনা শিখে করবি কি ঘরকন্না!