চোখে চশমা, হাতে লাঠি,
হাঁটুর ওপরে বস্ত্র
সত্য কথা, অহিংসা নীতি
এই ছিল তাঁর অস্ত্র।


'করব অথবা মরব'
এই ছিল তাঁর পণ
তিনি মোদের বাপুজী
সবার আপনজন।


আঠারো'শ ঊনসত্তর,
সেকেন্ড অক্টোবার
গুজরাট পোরবন্দরে
জন্ম হল তাঁর।


পিতার নাম করমচাঁদ,
মাতা পুতলি বাই,
বাপুজিরা এক বোন
আর তিন ভাই।


শৈশব হতে সত্যের প্রতি
নিষ্ঠা অবিচল,
বুঝেছিলেন অহিংসার কাছে
তুচ্ছ বাহুবল।


আইন নিয়ে পড়াশোনা,
ব্যারিস্টারি পাশ
কর্মসূত্রে দীর্ঘদিন
আফ্রিকাতে বাস।


বর্ণবিদ্বেষ ছিল প্রকট
সাউথ আফ্রিকায়,
'সত্যাগ্রহ' নীতির দ্বারা
দূর করলেন তায়।


দেশে ফিরে  তাঁর দাবি---
দেশের মুক্তি চাই,
স্বাধীনতা সংগ্রামে
যোগ দিলেন তাই।


মারের বদলে মার নয়,
অনশন ও কারাবরণ
মুক্তি যুদ্ধে প্রতিবাদের
এটাই ছিল তাঁর ধরণ।


'অসহযোগ', 'আইন অমান্য'
কিংবা 'ভারত ছাড়ো'
স্বাধীনতার পথকে জেনো
প্রশস্ত করেছে আরও।


স্বাধীনতা পেলাম ঠিকই
দেশটা হল ভাগ
তাই বুঝি বাপুর ওপর
গডসের এতো রাগ!


ঊনিশ'শ আটচল্লিশ,
তিরিশে জানুয়ারী
মোদের ছেড়ে বাপুজী
স্বর্গে দিলেন পাড়ি।


রইল তাঁর  জীবন গাঁথা,
শাশ্বত সব  বাণী 
যুগে যুগে প্রেরণার
উৎস হবে জানি।