আরোগ্য
                  বিপ্লব দাস


পারলেম  না তোমায় ধরে রাখতে–
হাওয়ার মতো উড়ে গেলে দূর দিগন্তে
                           উত্তপ্ত নিঃশ্বাস ছেড়ে।
তাই মায়াবী ডানার দীপশিখা জ্বালিনে আর সাঁঝে
আঁকাবাঁকা আধার মাখামাখি জীবন,
শয্যাশায়ী বিছানায় শুয়ে আছো তুমি।
জ্বর ও গা মচমচ ব্যথা জড়ানো শরীর
মুখ ফিরিয়ে বসে আছে একা।
রোগীদের সঙ্গে তুমিও আজ রোগী
তাদের সঙ্গে শুরু হলো ওষুধ খাওয়ার পালা
তার সঙ্গে কাশির জন্য এক কাপ সিরাপ।
উল্লাসে নিরাশায় সঠিক চিকিৎসকের সন্ধানে
অনেকটা দিন পেরোলো– তা ঠিক মিললো না,
তবুও আমরা গেলে একটু করো স্বস্তিবোধ।


তোমার এই শুকনো মুখটা দেখতে
              আর ভালো লাগেনা–
বীজ যেমন ফোটার আগেই সূক্ষ্ম মুখে
দেখি উঁকি– মৃত সাড়া প্রায়;
তোমার থেমে যাওয়ার সঙ্গে,
আমিও থেকে গেলুম সময়ের গর্ভবতী পেটে।
বাধাবিঘ্ন থেকে এসো বেরিয়ে
গণনার ছাঁচে হইও না বন্দী
পুনলার্ভের দিন শুরু হোক নূতন ভাবে
পারস্পারিক হঠকারী আবৃত্তি  মজার দিনে।
উদ্ধার কামনা আমার ভগবানের কাছে,
জগন্নাথ রূপে প্রস্তুত হও আরোগ্য নিকেতনে।।
    
                                   রচনা – বিপ্লব দাস
                              তাং– ১৫/১১/২০১৭
                                     সন্ধ্যা ৬ টা ৭