জল্লাদের দেরাজ থেকে খপখপ তলোয়ার বেরিয়ে  আসছে,
আমার দিকে  তাক করে।
খুঁজে খুঁজে আমি ঢুকে যাই কোন ইঁদুরের গর্তে।
অহিংসার দেবদেবীরা দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে হাততালি দেন।


টাইগারহিলে রাতের চাদর সরিয়ে কালো মেঘের সামনে  ধ্যানমগ্ন দাঁড়িয়ে থাকে আমার স্বদেশ।
এক কাঙ্খিত আলোকস্তম্ভের আশায়।  
ঠিক সেই সময় কোন ধার করা ধর্মের ছুরিকাঘাত চলতেই থাকে।


আমি জানিনা আমার জন্মলগ্নে কারা বাজিয়েছিলো শঙ্খ, তারা আজ ঝিল্লির অশরীরী শরীর মেখে আমার শব যাত্রায় শামিল হবে।


কেন তুমি বোঝনা এই স্বর্গীয়  দীর্ঘশ্বাস সুগন্ধে, উল্লাসে,
পৃথিবীর অলিন্দে,প্রকোষ্ঠে।


কেউ এগিয়ে না আসলেও
সব কালো হাতের সামনে আমার কবিতারাই ফুটে থাকবে পবিত্র অহংকারে।


কোলকাতা ১১/৬/১৯