একটি কবিতা শোনাতে শোনাতে
তুমি নিজেই শব্দগুলো ছিঁড়ে ফেলো।
এই লগ্নেই তুমি অপরাজিতা হয়েছিলে।
তারপর কোন ভগ্নস্তুপ প্রাসাদের সিঁড়ি বেয়ে
নেমে এসে জঙ্গলের দিকে এগিয়ে যাও।
তোমার স্পষ্ট পদক্ষেপে পদচিহ্ন আঁকা হয়।
আর এক বনাঞ্চলে এবার তোমার বসবাস শুরু হবে।
কত নিবিড় বৃক্ষের আলিঙ্গন ঘিরে তোমার এক পুরো পৃথিবী।
যেখানে নীল আকাশের শব্দহীন সংসার।
পুরুষেরা ছিলো..
ছিলো খালি স্বপ্নের বুনিয়াদে।
তোমার শরীরে দশ বারো খানি ঘর ছিলো..
কত সুখী ছিলে।
কোন মৃত্যুই পরিহাস নয়..
বলে গেলে।