{প্রথম স্তবক}
------------------
একা পথ ফাঁকা আকাশ
জোনাকির আড্ডা আর
তুলো ছেঁড়া মেঘেদের লাশ
শুধু একজন যেন কোথাও নেই
থৈথৈ পাথারের দ্বারে
বুক আঁকড়ে দাঁড়িয়ে।


{দ্বিতীয় স্তবক}
-----------------
আয়ু যানের বৃত্ত দুলে,
ঘুরে ফিরে থামে সহসা বাধায়
বিমর্ষ চুল্লির ধোঁয়ার মতো
তোমাতে উড়ে বিদিশায় হারায়।


{মূল স্তবক}
------------------
সেই কবেকার একরাশ দীর্ঘশ্বাস
ভোরের ঘাসে তুষারের মতো তুলে রেখেছি
তোমার ফিরতি পথের রোদে ঝরাপাতা গলে যায়
আমার আতসকাঁচের তলে তোমার ছবি।


{তৃতীয় স্তবক}
------------------
একটা নিয়ন
আলোর পিয়ন হয়ে
খুঁজছি কোন ঠিকানায় আমার
স্মারক সমাধির টিকিট কাটা।


{চতুর্থ স্তবক}
------------------
নোনা জলের ঝিনুকে
চোখের মুক্তা লুকনো
তোমার গড়িমসি বসন্তে
আমি কবিতার ফেরিওয়ালা।


{মূল স্তবক}_ঐ
-------------------
সেই কবেকার একরাশ দীর্ঘশ্বাস
বুকের ঘাসে শিশিরের মতো তুলে রেখেছি
তোমার ফিরতি পথের রোদে ঝরাপাতা মরে যায়
আমার আতসকাঁচের তলে তোমার ছবি।