সম্মুখে সুদীর্ঘ অন্তহীন পথ ,
            পথের কিনারা নেই মাথার উপর ধূ ধূ রোদ ।
সেই পথ যেতে হবে পাড়ি দিয়ে ,
          ক্রোড়ে শিশু মাথায় মোটের বোঝা নিয়ে  ।
পথের সুরু থেকে কোথায় শেষ
                           কেই বা তা জানে ,
ক্লান্ত চরণ অবসন্ন দেহ
                   পেটে খিদের অনল না শুনে ।
রসদ যতটুকু ছিল তা পথেই হলো শেষ  ,
             ছোট শিশু খিদায় কাঁদে খাবার নিঃশেষ ।
খিদের জ্বালা না সইতে পারে শিশু ছটফট করে ,
           খিদা না সইতে  পারে শিশু বিধাতা জীবন নিল হরে ।
পিতা মাতা কেঁদে সারা ,অসহায় নিরুপায় তারা ,
          তীব্র খিদা ধূপ রোদ সহিলনা ,সন্তান হলো হারা  ।
ধূপরোদে পুড়ে পা শরীর না চলে
            তবুও পথ পাড়ি দিয় পৌঁছতে হবে গন্তব্যস্থলে ।
পেটেতে খিদার জ্বালা তৃষ্ণায় বুক ফাটে
                   তবুও যেতে  হবে স্বদেশে  ফিরে ,
দেশে ফিরে গেলে পরে যদি কিছু
                        অনুদান দেয় সরকারে   ।
রেল পথ চোরা পথ কত পথ ধরে ,
          পরিযায়ী শ্রমিক যত আসে দেশে ফিরে ।
খিদের জ্বালা মৃত্যু ভয় সব তুচ্ছ করে ,
         সুদূর পথ চলে তারা জীবনে বাঁচার তরে  ।
ভিনদেশে রয় তারা কাজ কাম তরে ,
         কোরোনা মহামারী গ্রাস করিল বিশ্বেরে  ।
লকডাউন ঘোষিলেন সরকার কোরোনা রুখিবারে ,
                    পরিযায়ীরা চাকরী খোয়ায় সবে বিপাকে পড়ে  ।
মলিকেরা চাকরী ছাড়ায় অর্থ নেই সাথে ,
                    বিপদে পড়িল তারা হেঁটে বের হলো পথে  ।


             *****************
বেলা -১১:২০ মিনিট ।
১৮/০৫ /২০২০  সোমবার ।
কেরাণিটোলা = মেদিনীপুর ।