অনেক-দিন ধরে শুনতে পাচ্ছি মেডিকোস্ ‘83 গ্রুপে,
প্রদীপ ঘুমিয়ে আছে কোভিড্ পজেটিভ হয়ে-
মেডিকা হসপিটালে।


দীর্ঘ  প্রায় একত্রিশ বছর পর-
2019এর 29শে সেপ্টেম্বরের সন্ধ্যায়-
মেডিকোস্ ‘83 এর পুনর্মিলনে দেখেছিলাম -
সেই- একইরকম শান্ত- সৌম্য- প্রদীপ’কে।
সেই ছোট্ট-ছোট্ট ঝাপ্সা হয়ে যাওয়া স্মৃতি-
আজ বড় প্রাণবন্ত হয়ে ব্যাপ্ত হয়েছে-
স্মৃতির মণি-কোঠায়।


আজ বিধাতাকে বলি-
তুমি কেন আজ এত হয়েছ কৃপণ ?
কি দোষ করেছিল ঐ শান্ত-
কারোর সাতএ পাঁচ এ না থাকা ছেলেটা?
কেন তুমি ওর বুকের সব বাতাস-
প্রবেশের পথ করে রেখেছো রুদ্ধ?
কেন তুমি ওর বিকল করেছো সব অঙ্গ প্রত্যঙ্গ ?
কেন তুমি ওকে বুঝতে দিচ্ছনা?
মেডিকোস্ ‘83 আজ নিদ্রাবিহীন-
কাটাচ্ছে রাত্রি-দিন।


কেন তুমি ওকে রেখেছো?
ভীষ্মের ষড়সজ্জায় ঘুম পাড়িয়ে ।
তোমার ভূবনে এত - অক্সিজেন, এত বাতাস-
তুমি দাওনা কেন ওর বুক ভরিয়ে!
দাওনা কেন এক নিমিষে
ওর সকল কষ্ট ঘুচায়ে!
দাওনা কেন তোমার ছোঁয়ায়-
ওর সকল ঘুম ভাঙিয়ে!


তুমি তো জান !
ওর এখনও রয়েছে অনেক-কাজ বাকি।
ওর পথ চেয়ে ব’সে আছে-
ওর সব কাছের মানুষ।
ওর আত্মজ , ওর পরিজন।


তাই এবার তুমি থামাও -
তোমার প্রলয়-নাচন!
প্রদীপ’কে দীপ্ত শিখায় জ্বালিয়ে দাও।
আর আমাদের সকলের প্রাণ ভরিয়ে দাও।
এই কোভিড্ আতঙ্ক থেকে মুক্তি দাও।