দিদি দিদি করে খোকার
কাটে সারাবেলা
কোনো কাজ দিলে খোকাকে
করে তাতে হেলা।  


একদিন খোকা বলল আমায়
কোথায় গেছে দিদি
কান্না করে ভাসত বুক আসে না কেন
ওগো মা দিদি।


ভগ্ন কন্ঠে বললাম এটাই তোর দিদির কবর
সোনার মতোন মেয়ে
চপল পায় চলতো সেজে গাঁয়ের
সুরু পথটি বেয়ে।


সোনার মুখখানি কবে আমার
গেল ছাড়িয়ে আমায়
দুঃখে আমার হিয়া কাঁদে কেন
জিজ্ঞেস করছিস আমায়?


খেলতে আমার সোনা মুখ
গাঁয়ের ছেলের সাথে
সদা করতে কাজ তোর দিদি খোকা
আমার হাতে হাতে।


যদি কখনো দিতাম বকা
কেঁদে ভাসত বুক
আজ যে নেই তোর দিদি খোকা
মনে নেই আমার সুখ।



রচনাকালঃ
২০/১২/২০২০