কবিতা যাবে বোধের বাহির এটাই নাকি বিধি ।
পাঠক যদি ভিরমি না খায়
কবিতা শুনে সটান পালায়
কিসের তবে কবিতাচর্চা কিসের গুণনিধি ?


কল্পনার গল্প রেঁধে আজব আজব শব্দ বেঁধে
কি প্রসঙ্গে কি যে বলা সব আঁধারে ঢাকা ।
সম্পর্কহীন শব্দেরা সব পঙক্তি ভরে আঁকা !  
সেটাই নাকি কবিতা হলো পাঠক গেলো দূরে
তারই মাঝে কবিতা লেখেন যিশু নিজের সুরে ।


চারপাশে দেখেন যেটাই পুষ্টি যোগায় অভিজ্ঞতায়
আসে ছড়ায় আর কবিতায় ।
ছন্দে সে কি দারুণ দোলা ভাবের কবি হরবোলা ।
ঘটনা যেন নাটকসম জীবনবোধে অনুপম ।
সহজ ভাষায় সরল তালে ছড়া কবিতার অর্থ জালে
পাঠক মুগ্ধ সেই চালে ।
ছোট্ট শিশু রাস্তা পেরোয় রাজার পোশাক কোথায় শুধোয়
অমলকান্তি, চায় হতে সে রোদ্দুর !


তাদের কথা কথার মালা সরল করে যায় যে বলা
সেই কবিতা পাঠকপ্রিয় যুগ পেরিয়ে হয় অজেয় ।


যিশুর দিনে যিশুর বিদায় অন্তরেতে তিনিই সদাই ।